Sugar Export Subsidy: চিনি রপ্তানি নিয়ে সরকারের বড় সিদ্ধান্ত, চাষীদের উপর পড়তে চলেছে বড় প্রভাব!

Sugar Export Subsidy: সরকার চিনি রপ্তানির উপর নজর রাখবে। মিলগুলিকে চুক্তির এবং রপ্তানির ডেটা সরবরাহ করতে হবে। প্রয়োজন পড়লে সরকার রপ্তানি সাবসিডি দেবে। আগস্ট মাসে সরকার রপ্তানির সাবসিডি বন্ধ করে দিয়েছিল। আন্তর্জাতিক বাজারে দাম বেশি হওয়ার কারণে সাবসিডি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল।

Sugar Export Subsidy: চিনি রপ্তানি নিয়ে সরকারের বড় সিদ্ধান্ত, চাষীদের উপর পড়তে চলেছে বড় প্রভাব!
ফাইল চিত্র

নয়া দিল্লি: ভারত থেকে রপ্তানি হওয়া চিনির উপর এখন দ্রুতই সাবসিডি শুরু হতে পারে। কেন্দ্রীয় সরকার চিনি কলগুলির কাছে মাসিক রপ্তানির ডাটা চেয়েছে, যাতে প্রয়োজন পড়লে এক্সপোর্ট সাবসিডি দেওয়া যেতে পারে। আন্তর্জাতিক বাজারে যদি চিনির দাম কম হয়, তো সরকার আরও একবার চিনি রপ্তানির উপর সাবসিডি দেওয়া শুরু করতে পারে। এরজন্য সরকার সমস্ত চিনি কলগুলিকে প্রত্যেক মাসে রপ্তানি হওয়া চিনির ডাটা দিতে বলেছে। দরকার পড়লে সরকার পদক্ষেপ নেবে।

এই কারণে বন্ধ করা হয়েছিল সাবসিডি

সরকার চিনি রপ্তানির উপর নজর রাখবে। মিলগুলিকে চুক্তির এবং রপ্তানির ডেটা সরবরাহ করতে হবে। প্রয়োজন পড়লে সরকার রপ্তানি সাবসিডি দেবে। প্রসঙ্গত আগস্ট মাসে সরকার রপ্তানির সাবসিডি বন্ধ করে দিয়েছিল। আন্তর্জাতিক বাজারে দাম বেশি হওয়ার কারণে সাবসিডি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল। চিনি কলগুলিকে বেশি করে চিনি রপ্তানি করার জন্য বলা হয়েছিল। গত বছর ৭২ লাখ টন চিনি রপ্তানি হয়েছিল। সরকার প্রায় ৫০ লাখ টন চিনির জন্য সাবসিডি দিয়েছিল।

খাওয়ার তেলের দাম বাড়ল

অন্যদিকে খাওয়ার তেলের দাম অনেকটাই বেড়েছে। এমসিএক্সে সিপিও-র দাম ১১১০ টাকা ছাড়িয়েছে। রিফাইন্ড সোয়ার দামও প্রায় ০.৫০ শতাংশ বেশি রয়েছে। মালেশিয়া পাম অয়েলের দামও বেড়েছে। মালেশিয়া পাম অয়েল MYR ৪,৭০০ টাকা প্রতি টন পার করতে পারে। এনসিডিএক্সে SYOREF-ও প্রায় ৫০ শতাংশ উপরে রয়েছে।

ক্রুডের দাম বাড়ল

ব্রেন্ট ক্রুড অয়েলের দাম লাগাতার পঞ্চম দিনও বাড়ল। এমসিএক্সেও লাগাতার তৃতীয় দিন বেড়েছে ক্রুডের দাম। ব্রেন্ট ক্রুড অয়েল গত পাঁচ দিনে ৩.৫ শতাংশ বেড়েছে। ব্রেন্টের দাম প্রতি ব্যারেল ৭৩ ডলার ছাড়িয়েছে। ডব্লিউটিআই-এর দামও প্রায় ১ শতাংশ উপরে রয়েছে। এমসিএক্সে অপরিশোধিত তেলের দাম প্রায় ১.৭৫ শতাংশ বেড়েছে।

দাম বাড়ার কারণ কী

ওমিক্রণ ভ্যারিয়েন্ট নিয়ে হু-এর বয়ানের পরই অপরিশোধিত তেলের দাম বেড়েছে। হু জানিয়েছে, ওমিক্রন রোগীদের শরীরে হাল্কা লক্ষণ দেখা গিয়েছে। ওমিক্রনের অর্থনীতির উপর বেশি প্রভাব না পড়ার আশা রয়েছে। বিনিয়োগকারীদের মধ্যে করোনার নিষেধাজ্ঞা জারি না হওয়ার আশা বেড়েছে। চাহিদা বাড়ার আশায় দামও যথেষ্ট বেড়েছে। সৌদির দাম বাড়াও একটা কারণ। সৌদি আরব এশিয়া আর ইউএসএ-এর জন্য দাম বাড়িয়েছে। পরমাণু বিষয়ে কথাবার্তার গতিরোধে ইরান থেকে সরবরাহে দেরী হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে।

আরও পড়ুন: Cryptocurrency Bill: কোনও পেমেন্ট হবে না ক্রিপ্টোকারেন্সিতে,আইন অমান্য করলে হবে জামিন অযোগ্য জেল

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla