PoK: ‘পাক অধিকৃত কাশ্মীর ভারতের অবিচ্ছেদ্য অংশ’, কার্গিল বিজয় দিবসে জানালেন রাজনাথ সিং

TV9 Bangla Digital

TV9 Bangla Digital | Edited By: অংশুমান গোস্বামী

Updated on: Jul 24, 2022 | 11:50 PM

Rajnath singh: কার্গিল যুদ্ধ জয়ের প্রেক্ষিতেই রাজনাথের মুখে উঠে এসেছে পাক অধিকৃত কাশ্মীরের প্রসঙ্গ।

PoK: ‘পাক অধিকৃত কাশ্মীর ভারতের অবিচ্ছেদ্য অংশ’, কার্গিল বিজয় দিবসে জানালেন রাজনাথ সিং
রাজনাথ সিং

শ্রীনগর: পাকিস্তান অধিকৃত কাশ্মীর (Pakistan-Occupied Kashmir) ভারতের অবিচ্ছেদ্য অংশ। আগামী দিনেও ভারতের অংশ হিসাবেই থাকবে পাক অধিকৃত কাশ্মীর (PoK)। রবিবার ২৩ তম কার্গিল বিজয় দিবসের অনুষ্ঠানে এ কথা বলেছেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং। কার্গিল যুদ্ধ জয়ের ২৩ তম বছর উপলক্ষ্যে একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছিল জম্মুতে। সেখানে উপস্থিত ছিলেন দেশের প্রতিরক্ষামন্ত্রী। কার্গিল যুদ্ধ জয়ের প্রেক্ষিতেই রাজনাথের মুখে উঠে এসেছে পাক অধিকৃত কাশ্মীরের প্রসঙ্গ। তিনি জানিয়েছেন, ভারতে থাকবেন বাবা অমরনাথ আর নিয়ন্ত্রণরেখার ওপারে থাকবে মা শারদা। এটা হতে পারে না।

পাক অধিকৃত কাশ্মীরের ব্যাপারে রাজনাথ বলেছেন, “পাক অধিকৃত কাশ্মীরের ব্যাপারে একটি রেজোলিউশন নেওয়া হয়েছে সংসদে। পাক অধিকৃত কাশ্মীর এবং কাশ্মীর ভারতের অংশ ছিল, আছে এবং ভবিষ্যতেও থাকবে। ভারতে বাবা অমরনাথ এবং নিয়ন্ত্রণরেখার ওপারে মা শারদার থাকা কখনও মেনে নেওয়া সম্ভব নয়।” অমরনাথে রয়েছে শিবের মন্দির। এবং শারদা পীঠে রয়েছে সরস্বতী মন্দির যা শারদা বলে পরিচিত। এই মন্দির এখন পাক অধিকৃত কাশ্মীরে অবস্থিত।

ররিবার রাজনাথের মুখে উঠে এসেছিল ১৯৬২ সালের চিন যুদ্ধের প্রসঙ্গও। সে দিনের তুলনায় আজকের ভারত অনেক বেশি শক্তিশালী বলে দাবি রাজনাথের। এ ব্যাপারে তিনি বলেছেন, “১৯৬২ সালে চিন লাদাখ দখল করেছিল। তখন প্রধানমন্ত্রী ছিলেন জওহরলালা নেহেরু। আমি তাঁর উদ্দেশ্য নিয়ে প্রশ্ন করতে চাই না। কিন্তু নীতির ব্যাপারে দুর্বলতা ছিল। যাই হোক, আজকের ভারত পৃথিবীর অন্যতম শক্তিশালী দেশ।”

কার্গিল বিজয় দিবসে যুদ্ধ জয়ের প্রসঙ্গ উঠে এসেছিল রাজনাথের কথায়। ভারতীয় সেনাবাহিনীর বীরত্বের কথাও স্বাভাবিক ভাবেই আলোচিত হয়েছে। এ ব্যাপারে রাজনাথ বলেছেন, “আমাদের সেনারা দেশের জন্য সবথেকে বেশি ত্যাগ স্বীকার করেছেন। প্রচুর সাহসী সেনা ১৯৯৯ সালের কার্গিল যুদ্ধে নিজেদের জীবন দিয়েছেন। আমি তাঁদের নতমস্তকে প্রণাম জানাই।” পাশাপাশি জম্মুতে যে সব নিরাপত্তারক্ষী দেশের জন্য প্রাণ হারিয়েছেন তাঁদের পরিবারের লোকেদের সঙ্গেও কথা বলেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী।

প্রসঙ্গত, ১৯৯৯ সালের ৮ মে থেকে ২৬ জুলাই অবধি হয়েছিল কার্গিল যুদ্ধ। দুর্গম এলাকায় শীতের সুযোগে পাকিস্তানের সেনা ঢুকে পড়েছিল ভারতীয় ভূখণ্ডে। পাক সেনাবাহিনীর সেই অসৎ উদ্দেশ্যকে প্রতিহত করেছিলেন ভারতীয় সেনারা। দুর্গম এলাকায়, প্রতিকূল পরিস্থিতিতে প্রচুর প্রাণের বিনিময়ে পাক বাহিনীকে হঠাতে সমর্থ হয়েছিল ভারত। তার পর থেকেই পালন করা হয় কার্গিল বিজয় দিবস।

Latest News Updates

Follow us on

Most Read Stories

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla