Punjab: ‘যুক্তরাষ্ট্রীয় ব্যবস্থায় আক্রমণ’, বিএসএফের ক্ষমতা বৃদ্ধির বিরোধিতা পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রীর, দলের অন্দরেও শুরু দোষারোপের পালা

Punjab CM on BSF: বাকি দুই রাজ্যের তরফে এই নির্দেশিকা নিয়ে কোনও অভিযোগ না করা হলেও পঞ্জাবের সীমান্তে বিএসএফের ক্ষমতা বৃদ্ধিতে অম-তসর, তার্ণ তারান ও পাঠানকোটের পুলিশের ক্ষমতার সঙ্গে বিরোধ বাঁধছে।

Punjab: 'যুক্তরাষ্ট্রীয় ব্যবস্থায় আক্রমণ', বিএসএফের ক্ষমতা বৃদ্ধির বিরোধিতা পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রীর, দলের অন্দরেও শুরু দোষারোপের পালা
বিএসএফের ক্ষমতাবৃদ্ঝিতে অখুশি পঞ্জাবের মুখ্য়মন্ত্রী। ফাইল চিত্র।

চণ্ডীগঢ়: সীমান্তে সুরক্ষা নিশ্চিত করতে কেন্দ্রের তরফে ক্ষমতা বাড়ানো হয়েছে সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (Border Security Force)। এবার সেই নির্দেশিকা ঘিরেই কেন্দ্রের সঙ্গে বিবাদে জড়াল পঞ্জাব সরকার (Punjab)। বিএসএফ(BSF)-কে সীমান্ত থেকে ৫০ কিলোমিটার এলাকা অবধি তল্লাশি অভিযান, বাজেয়াপ্ত , আটক, গ্রেফতারির ক্ষমতা দিতেই মুখ্যমন্ত্রী চরণজিৎ সিং চন্নি(Charanjit Singh Channi)-র দাবি, এটি সরাসরি যুক্তরাষ্ট্রীয় ব্যবস্থার উপর আক্রমণ।

সম্প্রতিই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ(Amit Shah)-র সঙ্গে দেখা করেছিলেন পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী। সেই সময় তিনি অনুরোধ করেছিলেন যে, সীমান্তে ক্রামাগত অনুপ্রবেশের ঘটনা বাড়ছে। কেন্দ্রের তরফে সীমান্তে যেন নিরাপত্তা আরও বাড়ানো হয়। এদিকে বিএসএফের ক্ষমতা বৃদ্ধি করতেই নয়া মুখ্যমন্ত্রী চন্নির দাবি, এটি যুক্তরাষ্ট্রীয় ব্যবস্থার উপর আক্রমণ। কেন্দ্র যেন দ্রুত এই নির্দেশ প্রত্যাহার করে নেয়।

এতদিন পর্যন্ত পশ্চিমবঙ্গ, পঞ্জাব ও অসমে সীমান্ত থেকে ১৫ কিলোমিটার ভিতর পর্যন্ত তল্লাশি অভিযান, বাজেয়াপ্ত ও গ্রেফতারির ক্ষমতা ছিল সীমান্তরক্ষী বাহিনীর হাতে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের নতুন নিয়মে বিএসএফের বিচরণের ক্ষেত্র বাড়িয়ে ৫০ কিলোমিটার পর্যন্ত করা হয়েছে। অর্থাৎ, এখন থেকে পাকিস্তান ও বাংলাদেশের সঙ্গে সীমান্তবর্তী এলাকায় দেশের ভিতরে সীমান্ত থেকে ৫০ কিলোমিটার ভিতর পর্যন্ত তল্লাশি, গ্রেফতারি করতে পারবেন জওয়ানরা।

বাকি দুই রাজ্যের তরফে এই নির্দেশিকা নিয়ে কোনও অভিযোগ না করা হলেও পঞ্জাবের সীমান্তে বিএসএফের ক্ষমতা বৃদ্ধিতে অম-তসর, তার্ণ তারান ও পাঠানকোটের পুলিশের ক্ষমতার সঙ্গে বিরোধ বাঁধছে। যেমন, অমৃতসরের বিখ্যাত স্বর্ণমন্দির আটারি সীমান্ত থেকে ৩৫ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। এতদিন অমৃতসর পুলিশই নিরাপত্তার দায়িত্ব সামলালেও এ বার বিএসএফ চাইলেই এখানে এসে তল্লাশি বা গ্রেফতারি করতে পারে।

কেন্দ্রের এই ঘোষণার পরই তিনি বলেন, “আমি সরকারের বিএসএফকে অতিরিক্ত ক্ষমতা দেওয়ার তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি। আন্তর্জাতিক সীমান্ত থেকে ৫০ কিমি অবধি তাদের ক্ষমতা বৃদ্ধি সরাসরি যুক্তরাষ্ট্রীয় ব্যবস্থার উপর আক্রমণ। আমি কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে অনুরোধ জানাচ্ছি তিনি যেন শীঘ্রই এই অযৌক্তিক সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করে নেন।”

পঞ্জাবের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রা সুখজিন্দর সিং রণধাওয়াও এই সিদ্ধান্তের সমালোচনা করে বলেন,”আমরা এই সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করছি। পঞ্জাবে এইরকম ভয়ের পরিবেশ তৈরি হতে দেব না আমরা। এর আগে পঞ্জাব কখনও সাম্প্রদায়িক হিংসা দেখেনি। আমরা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর কাছে অনুরোধ করছি তারা যেন রাজ্যের শান্তি বিঘ্নিত করার চেষ্টা না করেন।”

এ দিকে, পঞ্জাব কংগ্রেসের প্রাক্তন প্রধান সুনীল জাকর সরাসরি মুখ্যমন্ত্রী চরণজিৎ সিং চন্নিকেই আক্রমণ করেছেন এক সপ্তাহ আগেই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করার জন্য। তিনি বলেন, “কী চাওয়া হচ্ছে, তা নিয়ে সতর্ক থাকা উচিত! চরণজিৎ সিং চন্নি কী না বুঝেই পঞ্জাবের অর্ধেক অংশ কেন্দ্রের হাতে তুলে দিলেন? ৫০ হাজার স্কোয়ার কিলোমিটারের মধ্যে এখন ২৫ হাজার স্কোয়ার কিমিই বিএসএফের অধীনে পড়ছে। পঞ্জাব পুলিশের ক্ষমতায় হস্তক্ষেপ করা হচ্ছে।”

আরও পড়ুন: New Rules For Abortion: ২৪ সপ্তাহ পর্যন্তও করা যাবে গর্ভপাত, তবে বিশেষ কিছু ক্ষেত্রে

Read Full Article

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla