‘সিঙ্গাপুরের স্ট্রেন তৃতীয় ঢেউ আনতে পারে’, কেন্দ্রের কাছে জোড়া আবেদন কেজরীবালের

সিঙ্গাপুরের করোনা স্ট্রেন ইতিমধ্যেই সে দেশের শিশুদের আক্রমণ করতে শুরু করেছে।

'সিঙ্গাপুরের স্ট্রেন তৃতীয় ঢেউ আনতে পারে', কেন্দ্রের কাছে জোড়া আবেদন কেজরীবালের
ফাইল চিত্র।

নয়া দিল্লি: করোনার (COVID) দ্বিতীয় ঢেউয়ের মোকাবিলা করতে কার্যত হিমশিম খাচ্ছে গোটা দেশ। কেন্দ্রের বিজ্ঞান উপদেষ্টা আগেই জানিয়েছেন তৃতীয় ঢেউ অনিবার্য। এই পরিস্থিতিতে কেন্দ্রের কাছে সিঙ্গাপুরের সঙ্গে আকাশপথে যোগাযোগ বন্ধ করার আবেদন করেছেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরীবাল। টুইট করে কেজরীবাল লিখেছেন, “সিঙ্গাপুরের করোনা প্রজাতি শিশুদের জন্য অত্যন্ত বিপজ্জনক।ভারতে এটি তৃতীয় ঢেউ আনতে পারে।”

তিনি কেন্দ্র সরকারের কাছে দু’টি আবেদন করেছেন, প্রথমত সিঙ্গাপুরের সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করা। দ্বিতীয়ত, শিশুদের যত তাড়াতাড়ি সম্ভব করোনা ভ্যাকসিন দেওয়ার ব্যবস্থা করা। এর আগে ব্রিটেন স্ট্রেনের বাড়বাড়ন্তের সময়ও ব্রিটেনের সঙ্গে বিমান পরিষেবা বিচ্ছিন্ন করার আবেদন সবার আগেই করেছিলেন কেজরীবাল। তারপর কেন্দ্র সিঙ্গাপুরের সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করেছিল। তবু রোখা যায়নি দেশে করোনার ব্রিটেন প্রজাতির সংক্রমণ।

সিঙ্গাপুরের করোনা স্ট্রেন ইতিমধ্যেই সে দেশের শিশুদের আক্রমণ করতে শুরু করেছে। এই পরিস্থিতিতে কেজরীবালের দাবিকে সঙ্গত বলেই মনে নিচ্ছেন বিশেষজ্ঞ মহলের একাংশ। উল্লেখ্য এর আগে বিশিষ্ট চিকিৎসক দেবী শেট্টি সর্বভারতীয় এক সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছেন, তৃতীয় ঢেউয়ে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে শিশুরাই। তার অন্যতম কারণ ১৮ বছরের ঊর্ধ্বে টিকাকরণ শুরু হলেও শিশুরা এখনও টিকা থেকে বঞ্চিত।

আমেরিকা ও কানাডা ইতিমধ্যে ১২ বছরের ঊর্ধ্বে টিকাকরণ শুরু করলেও আপাতত ভারতে ট্রায়ালেই রয়েছে শিশুদের টিকাকরণ। করোনার তৃতীয় ঢেউ অনিবার্য, তাই ইতিমধ্যেই মহারাষ্ট্র ও কর্নাটক শিশুদের জন্য ওয়ার্ড তৈরির কাজ শুরু করেছে। মহারাষ্ট্রের স্বাস্থ্যমন্ত্রী রাজেশ টোপ জানিয়েছেন, তৃতীয় ঢেউয়ে বেশি আক্রান্ত হবে অপ্রাপ্তবয়স্করা। তাই তাদের জন্য ভিন্ন ভেন্টিলেটর ও শয্যা গঠনের কাজ চলছে।

আরও পড়ুন: গোমূত্র ও দুধ দিয়ে গ্রামে টানা হল ‘লক্ষণরেখা’, এক পা’ও এগোতে পারবে না করোনা!