‘দুয়ারে ভ্যাকসিন’! বাড়িতে বসেই টিকা হরিদেবপুরে, জানাজানি হতে তৃণমূল নেতা বললেন ‘আমি অনুতপ্ত’

Haridebpur: অভিযোগ, রজত শেখর হাওলাদার ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে জানান, ১১৫ নম্বর ওয়ার্ডের কেউ যদি ভ্যাকসিন না পেয়ে থাকেন তাঁর সঙ্গে যেন যোগাযোগ করেন।

  • Updated On - 6:38 pm, Thu, 22 July 21 Edited By: সায়নী জোয়ারদার
'দুয়ারে ভ্যাকসিন'! বাড়িতে বসেই টিকা হরিদেবপুরে, জানাজানি হতে তৃণমূল নেতা বললেন 'আমি অনুতপ্ত'
নিজস্ব চিত্র।

কলকাতা: ভবানীপুরের পর এবার হরিদেবপুর। আবারও ভ্যাকসিন নিয়ে বিতর্কে নাম জড়াল শাসকদলের নেতার। নিয়ম ভেঙে ‘দুয়ারে ভ্যাকসিন’ দেওয়ার অভিযোগ উঠল রজতশেখর হাওলাদার নামে এক তৃণমূল নেতার বিরুদ্ধে।

হরিদেবপুরের ১১৫ নম্বর ওয়ার্ডে আইন বহির্ভূত ভাবে বাড়ি বাড়ি করোনার টিকা দেওয়ার অভিযোগ উঠল। অভিযোগ, স্বাস্থ্যকর্মীদের নিয়ে গিয়ে কয়েকটি বাড়িতে করোনার টিকা দেওয়ার ব্যবস্থা করেছেন রজতশেখর। অথচ এমনটা একেবারেই বেআইনি। এমনকী সোশ্যাল মিডিয়ায় এসবের ঢালাও প্রচারও করার অভিযোগ ওঠে ওই তৃণমূল নেতার বিরুদ্ধে। সোশ্যাল মিডিয়ায় রীতিমতো ছবি দিয়ে প্রচার করেন। কিন্তু এই টিকা তিনি কোথা থেকে পেলেন, ঘটনার পর সেই প্রশ্নও উঠতে শুরু করেছে।

অভিযোগ, রজত শেখর হাওলাদার ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে জানান, ১১৫ নম্বর ওয়ার্ডের কেউ যদি ভ্যাকসিন না পেয়ে থাকেন তাঁর সঙ্গে যেন যোগাযোগ করেন। বিনামূল্যে তিনি ভ্যাকসিন দেবেন। অভিযোগ, এলাকার কো-অর্ডিনেটরকে সম্পূর্ণ অন্ধকারে রেখে এই কাজ করেন রজতশেখর। পরে কোঅর্ডিনেটর তা জানতে পেরে পুরসভার স্বাস্থ্য বিষয়ক দায়িত্বে থাকা অতীন ঘোষকে বিষয়টি জানান। একইসঙ্গে হরিদেবপুর থানাতেও জানানো হয়।

এলাকায় তৃণমূলের কো-অর্ডিনেটর রত্না শূর জানান, “আমি বিষয়টি শোনা মাত্রই চিফ মিউনিসিপ্যাল হেলথ অফিসারকে জানাই। একইসঙ্গে ওদের ছবিগুলি অতীনদাকে পাঠিয়েছি। বহু অসুস্থ মানুষ বলছেন বাড়িতে এসে ভ্যাকসিন দিলে ভাল হয়। কিন্তু রাজ্য কিংবা কেন্দ্র যেখানে তাতে মান্যতা দিচ্ছে না, কী করে একজন বেসরকারি ভাবে এটা করছেন আমার জানা নেই। স্বাস্থ্য কেন্দ্র থেকে প্রায় সাড়ে ৯ হাজার মানুষ টিকা পেয়েছেন। সেখানে এগুলি কেন হবে। এটা তো রাজনীতি ছাড়া কিছুই নয়।”

কিন্তু যাঁর বিরুদ্ধে সমস্ত অভিযোগ, সেই তৃণমূল নেতা রজতশেখর হাওলাদারের দাবি, “এটা দুয়ারে ভ্যাকসিন নয়। ১১৫ নম্বর ওয়ার্ডে যাঁকে ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে তিনি কো অর্ডিনেটরের কাছে বহুবার গিয়েছিলেন। শয্যাশায়ী বৃদ্ধ মানুষকে কী ভাবে নিয়ে যাবেন বাড়ির লোক? আমাকে দেবাঞ্জনের সঙ্গে তুলনা করলে তো হবে না। আমি এটা আমার অজান্তে করেছি, তার জন্য আমি অনুতপ্ত।”

রত্না শূরের অভিযোগের পাল্টা রজতশেখর বলেন, “জানি না উনি সুস্থ নাকি অসুস্থ। আমার কাছে সমস্ত কাগজপত্র রয়েছে। কোথা থেকে নিয়েছি। কী ভাবে নিয়েছি।” আরও পড়ুন: প্রাক্তন নিরাপত্তী রক্ষীর খুনের মামলায় এফআইআরে নাম, প্রত্যাহারের আর্জি নিয়ে আদালতে শুভেন্দু

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla