Simple Chair Test: গল্প কথা একেবারেই নয়! মাত্র একমিনিট চেয়ার টেস্টেই প্রমাণ হবে আপনি কতদিন বাঁচবেন

একটি সাধারণ চেয়ারই আপনার জীবন-মরণ পরীক্ষা নির্ধারণ করতে পারে। দেখে ভাবছেন কী আজগুবি কথা বলা হচ্ছে। একটি চেয়ার বলে দিতে পারে আপনি কতটা বয়সে বৃদ্ধ হবেন, কতদিন বাঁচবেন!

Simple Chair Test: গল্প কথা একেবারেই নয়! মাত্র একমিনিট চেয়ার টেস্টেই প্রমাণ হবে আপনি কতদিন বাঁচবেন
ছবিটি প্রতীকী

ডায়েট পরিবর্তন করা থেকে শুরু করে ওয়ার্কআউট- দীর্ঘায়ু হওয়ার জন্য নানান পরিবর্তন করার চেষ্টা করেছিলেন শেলডন কুপার। তিনি একবার নয়, একাধিকবার ভেরিয়েবল একত্রিত করে কবে কখন মারা যেতে পারেন, তা নির্ধারণ করার চেষ্টা করেছিলেন। এমন অবিশ্বাস্য়কর প্রতিভার জন্য় তিনি দ্য বিগ ব্যাং থিওরি-র জন্য বিখ্যাত ছিলেন। কারণ তাঁর মতে ডায়েট হল অন্যতম প্রধান সিদ্ধান্তকারী একটি কারণ, যা দীর্ঘায়ু বা দীর্ঘস্থায়ী রোগের ঝুঁকিকে প্রভাবিত করে। তবে একজন মানুষ কতদিন ধরে বেঁচে থাকবেন তার মূল্য়ায়ন করা কি সম্ভব? তবে ব্রিটিশ টেলিভিশন জগতের বিশিষ্ট প্রবীণ প্রযোজক ড. মাইকেল মোসলের মতে, একজন মানুষ কতদিন বেঁচে থাকতে পারেন,তার একটি সহজ উপায় রয়েছে।

ড. মোসলে একটি পুরনো কলামে লিখেছিলেন, একটি সাধারণ চেয়ারই আপনার জীবন-মরণ পরীক্ষা নির্ধারণ করতে পারে। দেখে ভাবছেন কী আজগুবি কথা বলা হচ্ছে। একটি চেয়ার বলে দিতে পারে আপনি কতটা বয়সে বৃদ্ধ হবেন, কতদিন বাঁচবেন! শুনতে অদ্ভূত লাগতেই পারে, কিন্তু বিশেষজ্ঞরা এর বিচিত্র পদ্ধতিতে প্রকাশ করে দেখিয়ে দিয়েছেন যে এক জন্য ব্যক্তির দীর্ঘ সময়ের জন্য এক পায়ে দাঁড়ানোর ক্ষমতাও ভবিষ্যদ্বাণী করতে পারে। তা দেখেই বোঝানো সম্ভব যে একজন ব্যক্তি কতটা সুস্থ থাকতে পারবেন। আর এই পদ্ধতি আপনি বাড়িতেই পরীক্ষা করে নিতে পারেন। তার জন্য লাগবে একটি মাত্র চেয়ার।

কীভাবে করবেন

কোনও হাতল ছাড়া একটি চেয়ার নিন। তার উপর বসে এক মিনিট টানা কতবার বসা থেকে দাঁড়াতে পারবেন তা গণনা করুন।

১৯৯৯সালের একটি সমীক্ষা অনুসারে জানা গিয়েছে, ৫০-এর দশকের প্রায় ২৭৬০জন পুরুষ ও মহিলার উপর নজর রাখা হয়েছিল। সেই সময় এটা আবিষ্কার করা গিয়েছিল যে যাঁরা ৩৬ বারের বেশি এই পদ্ধতিতে করে উঠতে পেরেছিলেন, শুধুমাত্র তাঁরাই সাধারণের থেকে অতিরিক্ত ১৩ বছর বেশি বেঁচেছিলেন।

আপনি কি দীর্ঘায়ু তা পরীক্ষা করার জন্য এই পদ্ধতি অবলম্বন করা যেতে পারে?

চেয়ার থেকে বসা ও দাঁড়ানো ছাড়াও , চোখ বন্ধ করে এক পায়ে দাঁড়ানো ও গ্রিপ পরীক্ষা করাও একপ্রকার দীর্ঘায়ুর গবেষণার অংশ। বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, ১৩ বছর পর অংশগ্রহণকারীদের সঙ্গে অনুসরণ করা হলে এও প্রমাণ হয় যে পরীক্ষায় পারফর্ম্যান্সের সঙ্গে তাঁদের হার্ট অ্যাটাক বা ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনার পূর্বাভাস মিলেছিল।

তবে এইগুলির মধ্যে সবচেয়ে বেশি প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে এক পায়ে দাঁড়ানোকে। চোখ বন্ধ করে এক পায়ে দাঁড়িয়ে থাকাকালীন আপনার হয়ে কেউ পরিমাপ করার পরামর্শ দিতে পারে। যে মুহূর্তে ভারসাম্য হারাতে শুরু করবে সেই মুহূর্ত থেকে সময় দেওয়া বন্ধ করে দিতে হবে। এই একই পদ্ধতি তিনবার প্রচেষ্টার পর গড় সময় পরিমাপ করতে হবে। যারা 10 সেকেন্ড বা তার বেশি সময় ধরে ভারসাম্য বজায় রাখতে পারে তাদের পরবর্তী 13 বছরে মৃত্যুর সম্ভাবনা তিনগুণ কম। আবার যারা দুই সেকেন্ড বা তার কম সময়ের জন্য অবস্থান বজায় রাখতে পারে তাঁরা তার বিপরীতে দিকে চালিত হবেন বলে মত প্রকাশ করেছেন বিশেষজ্ঞরা।

ডাঃ মোসলে তাদের ৪০ বছর বয়সী ব্যক্তিদের ১৩ সেকেন্ডের জন্য এটি করার পরামর্শ দিয়েছেন এবং ৫০-এর পরে, একজনকে আট সেকেন্ড বা তার বেশি লক্ষ্য রাখতে হবে। ৬০-এর দশকে, নিরাপদ গড় চার সেকেন্ডে নেমে আসে।

আরও পড়ুন: World AIDS Day: এইডস রোগীর ইমিউনিটি বাড়াতে ডায়েটে কোন কোন খাবার থাকা আবশ্যিক, জানাচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা

Related News

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla