KV Dhananjay on Candidates with Criminal Records : রাজনৈতিক দলগুলির প্রার্থী তালিকায় অপরাধীদের নাম : এর জন্য শুধুমাত্র আইন কি যথেষ্ট?

KV Dhananjay on Candidates with Criminal Records : রাজনৈতিক দলগুলির প্রার্থী তালিকায় অপরাধীদের নাম : এর জন্য শুধুমাত্র আইন কি যথেষ্ট?
ছবি সৌজন্যে : টুইটার

KV Dhananjay : নির্বাচনে এমন বহু প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন যাঁদের নামে অপরাধমূলক রেকর্ড রয়েছে। কিন্তু সুপ্রিম কোর্টের সব নির্দেশ অমান্য করেই তাঁরা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন।

TV9 Bangla Digital

| Edited By: অঙ্কিতা পাল

Jan 25, 2022 | 7:33 PM

কেভি ধনঞ্জয়, সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী

বিশ্বের সর্ববৃহৎ গণতন্ত্র হল ভারতবর্ষ। এই ভারতবর্ষের নির্বাচন প্রক্রিয়ায় স্বচ্ছতা আনার জন্য অনেক রায় দিয়েছে। যা সম্ভবত বিশ্বের অন্যান্য দেশের সুপ্রিম কোর্টের রায়ের তুলনায় অনেক বেশি। জনগণের আমাদের সুপ্রিম কোর্টের কাছে কৃতজ্ঞ থাকা উচিত। প্রথম লোকসভা নির্বাচন ১৯৫১-৫২ সালে অনুষ্ঠিত হয়েছিল। তখন মাত্র ১৩ শতাংশ ভোটার সাক্ষর ছিলেন। অবশ্যই, সেই সময়ে ভোটারদের একটি সিংহভাগ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করা প্রার্থীদের বিস্তারিত তথ্য পড়তে পারতেন না। যদিও এর পরে সাক্ষরতা এবং সাধারণ শিক্ষার উন্নয়ন ঘটেছিল। কিন্তু তার পরেও ভোটাররা দেশ স্বাধীন হওয়ার পর প্রথম ৫০ বছরের জন্য তাঁদের প্রার্থীদের অপরাধমূলক রেকর্ড এবং অন্যান্য সমালোচনামূলক তথ্য সম্পর্কে অবগত ছিলেন না।

আজ আমরা আমাদের প্রার্থী যাঁরা সংসদ বা বিধানসভার নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন তাঁদের শিক্ষাগত যোগ্যতা, সম্পদ এবং অপরাধমূলক রেকর্ড সম্পর্কে জানি। সুপ্রিম কোর্ট ২০০২ সালে এই প্রার্থীদের বিস্তারিত তথ্য প্রকাশ বাধ্যতামূলক বলে নির্দেশ দেয়। তবে পরবর্তীকালে সংসদে আইন প্রণেতারা এর তীব্র বিরোধিতা করেছিলেন। প্রতিরোধের সাক্ষী হয়েছিল যারা সম্পূর্ণ প্রকাশের বিরুদ্ধে পিছিয়েছিল। তবে এতে সুপ্রিম কোর্ট দমে যায়নি। তখন প্রায় সকলেই ভেবেছিলেন যে প্রার্থীদের তাঁদের নির্বাচনী হলফনামায় তাঁদের অপরাধমূলক রেকর্ড প্রকাশ করতে বাধ্য করা হলে অপরাধমূলক রেকর্ড আছে এরকম ব্যক্তিদের নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার সম্ভাবনা কমে যাবে। পরবর্তী বছরগুলিতে আমরা বুঝতে পেরেছিলাম যে আমরা ভুল ছিলাম। ২০১৮ সালে, সুপ্রিম কোর্ট চিন্তিত ছিল যে, আগের থেকে অনেক বেশি সংখ্যায় অপরাধী নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন এবং আমাদের জনগণের কাছে ভোট প্রার্থনা করছেন। একটি কঠোর সমাধান নিশ্চিত করা হয়েছিল। সুতরাং, ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বরে একটি নির্দেশ দেয় যা বাধ্যতামূলকভাবে মেনে চলতে হবে সমস্ত রাজনৈতিক দলের প্রার্থীদের। এই নির্দেশে বলা হয়েছিল, কোনও প্রার্থী যাঁর অপরাধমূলক রেকর্ড আছে তাঁকে এবং তাঁর দলকে তাঁর অপরাধমূলক রেকর্ডের তথ্য প্রচার করে জনগণকে জানাতে হবে। নির্বাচনের আগে মনোনয়ন প্রক্রিয়া শেষ হওয়ার পর কোনও স্থানীয় সংবাদপত্র এবং স্থানীয় টেলিভিশন চ্যানেলে তিনটি বিভিন্ন দিনে প্রার্থীর অপরাধমূলক তথ্যের বিষয়ে প্রচার করতে হবে। কিন্তু, প্রায় কেউই এটি মেনে চলেননি।

পরের বছর (২০১৯) লোকসভার নির্বাচনে, অপরাধমূলক রেকর্ড আছে এরকম প্রার্থী আগের থেকে বেশি সংখ্যায় ভোটের ময়দানে লড়ছিল। ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারিতে সুপ্রিম কোর্ট বলেছিল, “…গত চার সাধারণ নির্বাচন ধরে রাজনীতিতে অপরাধীদের সংখ্য়া উদ্বেগজনকভাবে বেড়েছে। ২০০৪ সালে সংসদের ২৪ শতাংশ সদস্যের বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা বিচারধীন অবস্থায় ছিল। ২০০৯ সালে তা বেড়ে হয়েছিল ৩০ শতাংশ; ২০১৪ সালে ৩৪ শতাংশ; এবং ২০১৯ সালে ৪৩ শতাংশ সাংসদের বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা বিচারাধীন অবস্থায় আছে।” সুপ্রিম কোর্ট ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারিতে এর থেকেও বেশি নির্দেশ জারি করেছিল এবং রাজনৈতিক দলগুলিকে তাদের ওয়েবসাইট এবং অন্যান্য জায়গায় অপরাধী প্রার্থীদের বাছার কারণ সম্পর্কে একটি ব্যাখ্যা দিতে বাধ্য করার জন্য২০২১ সালের অগাস্ট মাসে সেই নির্দেশগুলিকে সুপ্রিম কোর্ট সংশোধন করেছিল। এতে বলা হয়েছে, রাজনৈতিক দলগুলি এই নির্দেশ অমান্য করলে রাজনৈতিক দলগুলিকে সুপ্রিম কোর্ট অবমাননার দায়ে অভিযুক্ত করতে পারে।

বেশ কয়েকটি রাজ্যের আসন্ন বিধানসভার নির্বাচনে, এটি আশঙ্কা করা হচ্ছে যে অন্যান্যবারের চেয়ে আরও বেশি অপরাধীর নাম এইবার ব্যালট বাক্সে (ইভিএম) দেখবে দেশের নাগরিকরা। এখন, আমাদের প্রশ্ন একটাই কেন বেশিরভাগ প্রার্থীরা সুপ্রিম কোর্টের ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বরের নির্দেশনা মেনে চলেন না এবং তাঁদের মনোনয়নের পরপরই তাঁদের অপরাধমূলক রেকর্ড প্রচার করেন না। এর উত্তর খোঁজা কঠিন নয়। কোনও প্রভাবিত ভোটার বা হেরে যাওয়া প্রার্থী কোনও প্রার্থীর জয় নিয়ে প্রশ্ন করতেই পারেন যদি সেই প্রার্থী জনপ্রতিনিধিত্ব আইন, ১৯৫১-এর কিছু বিধানের আশ্রয় নিয়ে উচ্চ আদালতে একটি নির্বাচনী পিটিশন দায়ের করে (উদাহরণস্বরূপ, ১০০(১)(ডি)(iv)ধারা ] বিভিন্ন প্রয়োজনীয়তা লঙ্ঘন করেন।

প্রসঙ্গত, আমাদের দেশে নির্বাচনী পিটিশনগুলির দ্রুত সমাধান হয় না এবং কিছু এমনকি ৫ বছরের মেয়াদের পরেও দীর্ঘায়িত হয় এবং কখনও ফলপ্রসূ হয়ে যায়। তাই এই কারণেই খুব কম লোকই অপরাধী প্রার্থীদের বিরুদ্ধে মামলা করে না। আপত্তিকর প্রার্থীরা এটি জানেন এবং কোনও ফলাফলের কথা চিন্তা না করেই সুপ্রিম কোর্টের জারি করা আদেশ অমান্য করে। যদিও আমাদের অবশ্যই সর্বান্তকরণে সুপ্রিম কোর্টের এই পদক্ষেপের প্রশংসা করতে হবে। অপরাধমূলক রেকর্ড সমতে প্রার্থীরা সংসদ বা রাজ্যের আইনসভায় আমাদের ভোট চাওয়ার ঘটনাকে কমিয়ে আনতে পারেন। তবে এটি স্বীকার করাও অপরিহার্য যে সুপ্রিম কোর্ট আর এতে কার্যকর নয়।

আমাদের মতো গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে নির্বাচন সংক্রান্ত আইন তার নিজস্ব চ্যালেঞ্জের প্রস্তাব দেয় যখন সংস্কারের সূচনাকারী একটি আইনের আদালত হয়। সংসদ বা নির্বাচন কমিশনের মতো সুপ্রিম কোর্ট নির্বাচনী আইনে অসংখ্য পরিবর্তন করতে পারে না। এর নির্দেশগুলি কেবল নির্বাচন কমিশনের আধিকারিকদের সামনে বাধা তৈরি করতে পারে না। মনোনয়ন প্রক্রিয়া চলাকালীন, একজন রিটার্নিং অফিসার একটি নির্বাচনী হলফনামা প্রত্যাখ্যান করতে পারেন যদি তাতে উপযুক্ত ও প্রয়োজনীয় তথ্য না দেওয়া থাকে। তবে তিনি কিছু করতে পারবেন না যদি প্রার্থী মনোনয়ন শেষ হওয়ার পরে তার অপরাধমূলক রেকর্ডের বিজ্ঞাপন না দেয়। তবে একটি গণতন্ত্র এই বিষয়টি হালকাভাবে নিতে পারে না যে একজন প্রার্থী ইচ্ছাকৃতভাবে তার অপরাধমূলক রেকর্ড প্রকাশ করবেন না এবং এর জন্য তাকে শাস্তি দেওয়া হবে না। এর ভিত্তিতে তাকে অবশ্যই ট্রায়ালের মধ্যে দিয়ে যেতে হবে। ভারতে বিচার ব্যবস্থা দেখলে বোঝা যাবে এবং আপনারাও জানেন কীভাবে বছরের পর বছর ধরে ভারতে কোনও মামলার বিচার চলে। যতক্ষণ পর্যন্ত এই সমস্যাটি কার্যকরভাবে সমাধান না করা হয়, এবং আপনি আরও বিচারের মাধ্যমে এটি করতে পারবেন না, ততক্ষণ নির্বাচনী প্রচারে কম সংখ্যাক প্রার্থী যাঁদের অপরাধমূলক রেকর্ড রয়েছে তা দেখার সম্ভাবনা কম।

আরও পড়ুন : National Voters Day : ফের “এক দেশ, এক নির্বাচন”-র পক্ষে সওয়াল, জাতীয় ভোটার দিবসে ‘৭৫ এ ৭৫’ করার আবেদন মোদীর

Follow us on

Most Read Stories

Click on your DTH Provider to Add TV9 BANGLA