ভোটের পরেও অব্যাহত বোমা বাঁধার ঠেক! পুলিশি অভিযানের জেরে উদ্ধার ২৮ টি তাজা বোমা-সহ বিস্ফোরক তৈরির মশলা, গ্রেফতার ১

গ্রামবাসীরা জানিয়েছেন, বেশ কিছুদিন থেকে গভীর রাতে মাঝেমধ্য়েই বোমা (Bomb) বিস্ফোরণের আওয়াজ পাওয়া যেত। কিন্তু, কে বা কারা বোমা বিস্ফোরণ করছে তা আন্দাজ করতে পারেননি কেউ। মাসখানেক ধরেই গ্রামে কিছু অনুপ্রবেশকারীর আনাগোনাও নজরে পড়েছিল স্থানীয়দের।

ভোটের পরেও অব্যাহত বোমা বাঁধার ঠেক! পুলিশি অভিযানের জেরে উদ্ধার ২৮ টি তাজা বোমা-সহ বিস্ফোরক তৈরির মশলা, গ্রেফতার ১
নিজস্ব চিত্র

দক্ষিণ ২৪ পরগনা: পুলিশি তৎপরতার জের। ভোটের পরেও অবাধে চলছিল বোমা বাঁধার ঠেক। গোপন সূত্রে খবর পেয়ে সেখানে তল্লাশি চালায় পুলিশ। উদ্ধার হয় প্রায় ২৮ টি তাজা বোমা (Bomb) ও বিস্ফোরক তৈরির মশলা। শনিবার, ক্যানিংয়ের কড়াকাটি গ্রামের ঘটনা।

ক্যানিং পুলিশের তরফে জানা গিয়েছে, বেশ কিছুদিন ধরেই ক্যানিংয়ের (Canning) দীঘিরপাড় এলাকায় বোমা তৈরির খবর পাওয়া যাচ্ছিল। সেই মতো শনিবার দুপুরে দীঘিরপাড়ের কড়াকাটি গ্রামে হানা দেয় পুলিশ। খোঁজ পাওয়া যায় বোমা বাঁধার গোপন ঠেকের। সেখান থেকেই বাবলু কয়াল নামে এক দুষ্কৃতীকে গ্রেফতার করে পুলিশ। জানা গিয়েছে ধৃতের বাড়ি স্থানীয়  বেগমপুর এলাকায়। ঘটনাস্থল থেকে শুধু ২৮ টি তাজা বোমা নয়, বোমা তৈরির মশলাও পাওয়া গিয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। ঘটনায় ধৃত বাবলু গোপন জবানবন্দীতে জানিয়েছে, ওই গ্রামে বেশ কিছু জায়গায় বোমা বাঁধার কাজ চলে। কড়াকাটিতে বোমা তৈরির পাশাপাশি  বোমা মজুত করাও চলত। ধৃত বাবলু ছাড়া আর কে কে এই চক্রের সঙ্গে যুক্ত তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ। জানা গিয়েছে রবিবার ধৃতদের আদালতে তোলা হবে।

গ্রামবাসীরা জানিয়েছেন, বেশ কিছুদিন থেকে গভীর রাতে মাঝেমধ্য়েই বোমা (Bomb) বিস্ফোরণের আওয়াজ পাওয়া যেত। কিন্তু, কে বা কারা বোমা বিস্ফোরণ করছে তা আন্দাজ করতে পারেননি কেউ। মাসখানেক ধরেই গ্রামে কিছু অনুপ্রবেশকারীর আনাগোনাও নজরে পড়েছিল স্থানীয়দের। সন্দেহ হওয়ায় থানায় খবরও দিয়েছিলেন গ্রামবাসীরা। তাঁদের অনুমান, ওই দুষ্কৃতীরাই বোমা পরীক্ষা করতে গভীর রাতে বোমা বিস্ফোরণ ঘটাতো। যদিও, ক্যানিংয়ে বোমা উদ্ধার নতুন নয়। ভোটপর্বে, ক্যানিং ও ভাঙড় এলাকায় বিভিন্ন সময়ে বোমা উদ্ধার হয়েছে।

আরও পড়ুন: বাড়ি ফেরার তাড়ায় ভিড় বাড়ছে ধর্মতলায়, ১০০ টি অতিরিক্ত বাস চালাবে নবান্ন

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla