Fake Currency: গাড়ির তেল ভরাতে গিয়েই হল কাল! উদ্ধার প্রায় ৩০০০ টাকার জাল নোট

Bangaon: গাড়িটিতে বড়-বড় করে লেখা ছিল পুলিশ।

Fake Currency: গাড়ির তেল ভরাতে গিয়েই হল কাল! উদ্ধার প্রায় ৩০০০ টাকার জাল নোট
উদ্ধার তিন হাজার টাকার জাল নোট (প্রতীকী ছবি)

বনগাঁ: গাড়িতে বড়-বড় করে লেখা রয়েছে পুলিশ (police)। যে কেউ দেখেই স্বাভাবিক ভাবে মনে করবে গাড়িটি পুলিশের। কিন্তু কে জানত সেই গাড়ির মধ্যেই চলছে চোরা কারবার। আদতে সবটাই ভুয়ো। উত্তর ২৪ পরগনার বনগাঁর ঘটনা।

ঠিক কী ঘটেছিল?
অমিত প্রামাণিক। বছর আঠাশ থেকে তিরিশের মধ্যে হবে। ওই যুবক গতকাল একটি অল্ট্রো গাড়ি নিয়ে পেট্রল (Petrol Pump) যায় তেল ভরতে। এইবার ওই গাড়িটির মধ্যে বড়-বড় করে লেখা রয়েছে পুলিশ (Police)। স্বাভাবিক ভাবেই পাম্পের কর্মচারিদের কোনও সন্দেহই হয়নি। তাঁরাও প্রথমে ভেবেছিলেন পুলিশের গাড়িতেই তেল ভরছেন তাঁরা।

এরপরই ঘটল আসল ঘটনা। অভিযোগ, প্রায় তিন হাজার টাকার তেল ভরার পরই ওই যুবক কর্মচারিদের হাতে ছয়টি পাঁচশ টাকার নোট দেয়। নোটগুলি দেখে পাম্পের কর্মচারিদের সন্দেহ হওয়ায় তারা সঙ্গে-সঙ্গে নোটগুলি পরীক্ষা করতে চলে যায়। পরীক্ষার করার মেশিনে টাকা ফেলতেই উঠে আসে আসল সত্যি। বোঝা যায় প্রতিটি টাকাই জাল। এরপর তৎক্ষণাত পাম্পের কর্মচারীরা অমিত সমেত গাড়িটিকে ধরে ফেলেন ।

খবর দেওয়া হয় পুলিশে। পেট্রলপাম্পের তরফ থেকে লিখিত অভিযোগ পেয়ে অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে বনগাঁ থানার পুলিশ । গাড়ি চালকের কাছ থেকে আরও কিছু জাল টাকা উদ্ধার করে পুলিশ (police) । ইতিমধ্যে পুলিশ জানিয়েছে মোট ২৮ হাজার জাল টাকা উদ্ধার হয়েছে ওই ব্যক্তির কাছ থেকে । এই ব্যক্তির ভাই কলকাতা পুলিশের হোমগার্ড। তার গাড়ি নিয়ে অমিত প্রামাণিক বনগাঁতে আসছিল । পুলিশের তরফ থেকে ধৃত ব্যক্তিকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে এত পরিমাণে জাল টাকা কোথা থেকে পেল সে এবং কোন জালটাকা চক্রের সঙ্গে জড়িত আছে কিনা ।

এদিকে, জেলার বাংলাদেশ  বর্ডার এলাকা প্রতিদিন বিএসএফ হাতে গ্রেফতার হয় একের পর পাচারকারী। ককনও অস্ত্র, কখনও জাল নোট, কখনও রূপোর বল, কখনও বা অবৈধ অনুপ্রবেশের জন্য। গতকালও একাধিক এটিএম কার্ড, মোবাইল ফোন ও রুপোর গহনা সহ গ্রেফতার হয় এক পাচারকারী।

জানা গিয়েছে, সীমান্ত থেকে তাদের গ্রেফতার করেছে বিএসএফ জওয়ানরা। বসিরহাট মহকুমার স্বরূপনগর থানার ভারত-বাংলাদেশ বিথারী সীমান্তের চেকপোস্টের ঘটনা। এদিন সকালে উত্তম ঘোষ নামক এক ব‍্যক্তি বিএসএফের হাকিমপুর চেকপোস্টে আসলে ১১২নং ব্যাটেলিয়ানের সীমান্তরক্ষী বাহিনী তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করে। তাঁর উত্তরে অসঙ্গতি মেলায় সন্দেহ হয় জওয়ানদের। তল্লাশি চালানো হয়।

এরপরই ওই ব্যক্তির পোশাকের একাধিক জায়গা থেকে প্রায় তিন কেজি রুপোর গহনা উদ্ধার হয়। যার বাজার মূল্য প্রায় তিন লক্ষ টাকা। এছাড়াও ৮টি এটিএম কার্ড, ৩টি সেল ফোন ও ৬ হাজার টাকা পাওয়া যায়। ধৃতের বাড়ি পার্শ্ববর্তী হাকিমপুর গ্রামে।

সীমান্তরক্ষী বাহিনীর জেরায় সে স্বীকার করেছে, বাংলাদেশে পাচার করার উদ্দেশ্যে সেগুলি নিয়ে আসছিল। এমনকী বেশ কয়েকজন পাচারকারীর সঙ্গে তার যোগসূত্র রয়েছে বলেও অনুমান সীমান্তরক্ষী বাহিনীর।

আরও পড়ুন: Kolkata Night Curfew: ‘কার্ফুর রাতেও গাড়ি নিয়ে বাইরে কেন?’, রাত্রিকালীন বিধি নিষেধ নিয়ে কড়াকড়ি কলকাতা পুলিশের

 

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla