আবারও জলোচ্ছ্বাসের আশঙ্কা, সরানো হল কয়েক হাজার মানুষকে

ইয়াসের (Yaas) পর ফের নতুন করে খোলা হচ্ছে ত্রাণ শিবির। সরানো হয়েছে অন্তত ১৫ হাজার মানুষকে।

আবারও জলোচ্ছ্বাসের আশঙ্কা, সরানো হল কয়েক হাজার মানুষকে
ফাইল ছবি

কলকাতা: ইয়াসের অভিশাপে বাঁধ ভেঙেছে রাজ্যের একাধিক জায়গায়। সেই বাঁধ সম্পূর্ণভাবে মেরামত হয়নি এখনও। তারই মধ্যে ফের আছড়ে পড়তে পারে জলোচ্ছ্বাস। বঙ্গোপসাগেরর (Bay Of Bengal) নিম্নচাপে জেরেই ফের ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে উপকূলের বিভিন্ন এলাকা। উপকূলবর্তী এলাকার মানুষজনকে সতর্ক করল আবহাওয়া দফতর (Weather office)। মৎস্যজীবীদের ফিরে আসতে বলা হয়েছে। তৎপরতার সঙ্গে উপকূলের বহু মানুষকে নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নিয়ে যাচ্ছে প্রশাসন।

আগামিকাল, শুক্রবার বঙ্গোপসাগরে তৈরি হচ্ছে নতুন নিম্নচাপ। আর সেই নিম্নচাপের প্রভাবে গোটা রাজ্যে ঝড়-বৃষ্টি চলবে আগামী কয়েক দিন ধরে। জলোচ্ছ্বাস হতে পারে বলেও সতর্ক করেছেন আবহাওয়াবিদরা। দক্ষিণ ২৪ পরগনার বিভিন্ন গ্রাম ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। দক্ষিণ ২৪ পরগনার জেলাশাসক উলাগানাথন জানিয়েছেন, ভাঙা বাঁধ অনেক জায়গায় ঠিক করা হয়েছে। যেখানে যেখানে এখনও বাঁধ ঠিক হয়নি, সেখান থেকে লোক সরানো হয়েছে। ঘোড়ামারা দ্বীপ, মৌসুমী, জি প্লট এসব জায়গা থেকে বাসিন্দাদের সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। এ ছাড়া বিডিও, পঞ্চায়েতের সদস্যদের লোকজনকে সতর্ক করা হয়েছে। এলাকায় শুরু হয়েছে মাইকিং। প্রয়োজনে আরও লোক সরানো হবে বলে জানিয়েছেন জেলাশাসক। মৎসজীবীদেরও সমুদ্রে যেতে নিষেধ করা হয়েছে।

আরও পড়ুন: ‘মুকুল তো অপমান করেননি…’, কিসের ইঙ্গিত দিলেন সৌগত!

জলস্তর যদি বাড়ে তাহলে আবারও এলাকাগুলি প্লাবিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। নতুন সারাই করা বাঁধগুলির মাটি এখনও নরম। তাই আবার জলোচ্ছ্বাস মোটেই খুব একটা সুখকর হবে না এলাকার মানুষের কাছে।  শুধু সাগর নয় পাথর প্রতিমা-সহ উপকূলের একাধিক এলাকা থেকে মানুষজনকে সরিয়ে আনা হচ্ছে। নতুন করে খোলা হচ্ছে ত্রাণ শিবির। ইয়াসের পর যাঁরা বাড়ি ফিরে গিয়েছিলেন, তাঁদের ফের ত্রাণ শিবিরে নিয়ে আসা হচ্ছে।

আবহাওয়াবিদরা জানাচ্ছেন, এই মুহূর্তে ঘূর্ণাবর্ত রয়েছে বঙ্গোপসাগরে, আগামিকাল থেকে এটাই নিম্নচাপে পরিণত হবে, পরবর্তীকালে তা গভীর নিম্নচাপে পরিণত হতে পারে। তবে বর্ষাকালে সাইক্লোনের অনুকূল আবহাওয়া না থাকায় ঘূর্ণিঝড়ের কোনও আশঙ্কা থাকছে না। একটাই ভাল খবর, এই নিম্নচাপের জেরে বর্ষা ঠিক সময়ে ঢুকে পড়বে রাজ্যে। পশ্চিমবঙ্গের প্রায় সমস্ত জেলায় এই বর্ষার আগমন ঘটবে দিন কয়েকের মধ্যেই। ১১ জুন, শুক্রবার তৈরি হবে নিম্নচাপ। আর তার জেরে ইতিমধ্যেই রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় বৃষ্টি শুরু হয়েছে। ১৩ তারিখের মধ্যে রাজ্যের সব জায়গায় বর্ষা পৌঁছে যাবে। আগামী কয়েক দিনে দক্ষিণ বঙ্গের সমস্ত জেলাতেই হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাত, সঙ্গে বজ্রপাতের সম্ভাবনা থাকছে।

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla