Royal Bengal Tiger: শীতের শুরুতেই সুন্দরবনে ‘রয়্যাল’ দর্শন, উচ্ছ্বসিত পর্যটকরা

Royal Bengal Tiger spotted: সুন্দরবনে (Sundarban)  এসে বাঘের দেখা পাওয়া ভাগ্যের ব্যাপার। তবে কয়েকদিন আগে সেই সৌভাগ্য হয়েছিল বসিরহাট মহকুমার হিঙ্গলগঞ্জ ব্লকের কালিতলা। এবার আরেক বাঘ দর্শন দোঁবাকি জঙ্গলের কাছে।

Royal Bengal Tiger: শীতের শুরুতেই সুন্দরবনে 'রয়্যাল' দর্শন, উচ্ছ্বসিত পর্যটকরা
ওই যায় বাঘ-মামা! নিজ্সব চিত্র।

দক্ষিণ ২৪ পরগনা: সাঁতরে যাচ্ছে ওটা কী? হ্যাঁ! বাঘ, বাঘ, বাঘ… জলপথে দোবাঁকি থেকে পাখিরালয়ে যাওয়ার পথে সমস্বরে চিৎকার করে উঠলেন জনা কয়েক পর্যটক। কেউ ঝট করে রয়্যাল বেঙ্গল দর্শনকে ক্যামেরাবন্দি করে ফেললেন। শীতের শুরুতেই সুন্দরবনে (Sundarban) রয়্যাল বেঙ্গল টাইগার (Royal Bengal Tiger) -এর দর্শনে উচ্ছ্বসিত পর্যটকেরা।

সুন্দরবনে (Sundarban)  এসে বাঘের দেখা পাওয়া ভাগ্যের ব্যাপার। তবে কয়েকদিন আগে সেই সৌভাগ্য হয়েছিল বসিরহাট মহকুমার হিঙ্গলগঞ্জ ব্লকের কালিতলা পঞ্চায়েতের বসিরহাট ফরেস্ট রেঞ্জ অন্তর্গত ঝিঙ্গাখালি বিটের শকুনখালির জঙ্গলে আসা একদল পর্যটকের। দীপাবলির দিন ভোরবেলা দক্ষিণরায়ের দর্শন পেয়েে উচ্ছ্বসিত হন কেউ কেউ। এবার দোঁবাকি জঙ্গলের কাছে ‘বাঘ-মামা’ কে সাঁতরে পার হতে দেখলেন আরেক দল পর্যটক।

শীতের শুরুতেই রয়্যাল বেঙ্গল টাইগারের দর্শন পেয়ে স্বাভাবিক ভাবেই ভীষণ খুশি তাঁরা। জানা গিয়েছে, বৃহস্পতিবার দুপুর দুটো নাগাদ এগারো জনের একটি পর্যটক দল সুন্দরবন ভ্রমণে বেরিয়ে গিয়েছিলেন দোঁবাকি জঙ্গল এলাকায়। দোঁবাকি থেকে পর্যটক দলটি পাখিরায়লয়ের দিকে ফিরছিলেন। লঞ্চে ছিলেন তাঁরা। সেই সময় তাঁর এন্ট্রি। দেখা গেল তড়িঘড়ি সাঁতরে পার হচ্ছে বিশালাকার বাঘটি। পীরখালি জঙ্গল থেকে বাঘটি নদীতে সাঁতার দিয়ে সোজা দোঁবাকি জঙ্গলের দ্বীপে চলে যায়। আর সেোই দৃশ্য চাক্ষুষ করে নিজেদের ভাগ্যবান বলে মনে করছে ওই পর্যটক দলটি।

সুন্দরবনের রয়্যাল বেঙ্গল টাইগারকে দেখে আনন্দিত ইউরেখা বোট এর ১১ জনের পর্যটক দলটি জানায়, তারা ভাবতেই পারেনি এভাবে রয়্যাল বেঙ্গল টাইগারের দর্শন পাবেন।

সুন্দরবনে লকডাউন আর করোনার তান্ডবে বিগত প্রায় দু’বছর যাবৎ জঙ্গলে যাওয়ার অনুমতি ছিল না পর্যটকদের। গত ১ অক্টোবর থেকে পর্যটকদের জন্য সরকারি ভাবে ছাড়পত্র মিলেছে। পাশাপাশি চলতি শীতের মরসুম শুরুর প্রথম পর্যায়ে সুন্দরবনের প্রত্যন্ত জঙ্গল লাগোয়া এলাকা যে ভাবে দীর্ঘক্ষণ দক্ষিণরায়ের দেখা মিলেছে, তাতে করে যে কোন প্রান্তের ভ্রমণপিপাসু পর্যটকের ভিড় আরও বাড়বে বলে আশাবাদী পর্যটন বিভাগের আধিকারিকরা।

আসলে বাঙালি মাত্রেই তো ভ্রমণপিপাসু। তাদের পায়ের তলায় যে সরষে। তাই অল্প কয়েকদিনের জন্য বেড়াতে যাওয়ার কথা হলেই সুন্দরবন তাঁদের মনে আসেই। প্রায় প্রতি বছরই সবুজের মাঝে অক্সিজেনের খোঁজে পাড়ি দেন অনেকেই। বাক্সপ্যাঁটরা গুছিয়ে বেরিয়ে পড়েন সবাই। তবে গত বছর করোনা পরিস্থিতির জন্য লকডাউন ছিল টানা অনেকদিন। সেই সময় বাড়ি থেকে বেরতে পারেননি কেউ। তার ফলে ব্যাপক ক্ষতি হয় পর্যটন ব্যবসায়। তার পর আসে আনলক পর্যায়। সে সময় অর্থনীতিকে সচল করার চেষ্টা শুরু হয়। এখন অবশ্য ধীরে ধীরে আবার স্বাভাবিক হচ্ছে সুন্দরবনে পর্যটক সংখ্যা। শীতের মরসুমে ভিড় বাড়ছে পর্যটকদের। ম্যানগ্রোভের জঙ্গলে অক্সিজেন নিতে নিতে বাঘের দেখা পাওয়া তো বাড়তি পাওনা বটেই।

আরও পড়ুন: Unknown Fever: ‘বিপদ’ অজানা জ্বর, কেন রায়গঞ্জে হু হু করে বাড়ছে আক্রান্ত শিশুর সংখ্যা?

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla