‘নিরাপদ আশ্রয়ে যান’, আত্মঘাতী হামলার সম্ভাবনা কাবুল বিমানবন্দরে, সতর্কবার্তা আমেরিকা-ব্রিটেনের

অস্ট্রেলিয়ার তরফেও জানানো হয়েছে, বর্তমানে কাবুল বিমানবন্দরের আশেপাশের পরিস্থিতি ভয়াবহ। বিপুল সংখ্যক মানুষ বিমানবন্দরের বাইরে জমায়েত করে থাকায় সংঘর্ষ বা বড় কোনও বিপদের সম্ভাবনা রয়েছে। সন্ত্রাসবাদী হামলার সম্ভাবনাও রয়েছে।

'নিরাপদ আশ্রয়ে যান', আত্মঘাতী হামলার সম্ভাবনা কাবুল বিমানবন্দরে, সতর্কবার্তা আমেরিকা-ব্রিটেনের
বিমানবন্দরে হামলার প্রবল সম্ভাবনা। ছবি:PTI

কাবুল: যে কোনও মুহূর্তেই হামলা (Terror Attack) হতে পারে কাবুল বিমানবন্দরে (Kabul Airport)। সন্ত্রাসবাদী হামলার প্রবল সম্ভাবনা থাকায় আপাতত দেশের নাগরিকদের বিমানবন্দর থেকে দূরেই থাকতে বলল আমেরিকা, ব্রিটেন ও অস্ট্রেলিয়া। যারা ইতিমধ্যেই বিমানবন্দরের বাইরে ভিড় জমিয়েছেন, তাদেরও দ্রুত সুরক্ষিত কোনও স্থানে আশ্রয় নিতে বলা হয়েছে। এ দিন ভোরবেলায় চারজন সন্দেহভাজন ব্যক্তিকে আটক করেছে মার্কিন সেনা, এমনটাও খবর মিলেছে।

তালিবান(Taliban)-র দখলে আফগানিস্তান (Afghanistan) চলে যাওয়ার পরই নিজেদের দেশের নাগরিকদের ফেরাতে শুরু করেছে বিভিন্ন দেশ। কিন্তু মঙ্গলবারই তালিবানদের তরফে মূলত আমেরিকাকে হুঁশিয়ারি দিয়ে বলা হয়, আগামী ৩১ অগস্টের মধ্যেই সমস্ত নাগরিকদের দেশে ফিরিয়ে নিতে হবে। ৩১ অগস্টের পরও উদ্ধারকার্য চালানোর চেষ্টা করলে ফল ভাল হবে না।

পশ্চিমী দেশগুলি থেকে ইতিমধ্যেই এক সপ্তাহের মধ্যেই ৮০ হাজারেরও বেশি মানুষকে ফিরিয়ে আনা হয়েছে। বিমানবন্দরে বিশৃঙ্খলার জেরে পদপৃষ্ট হয়ে কমপক্ষে সাতজন এবং তার আগে বিমানবন্দরের ভিতরেই তালিবানের সঙ্গে মার্কিন বাহিনীর সংঘর্ষে কমপক্ষে আটজনের মৃত্যু হয়।

বর্তমানে জোরকদমে উদ্ধারকার্য চললেও সম্প্রতিই ব্রিটেনের তরফে সন্ত্রাসবাদী হামলার আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়। ইসলামিক সন্ত্রাসবাদী সংগঠন আইসিস-কে (ISIS-K) যে কোনও দিন আত্মঘাতী বোমা বিস্ফোরণ ঘটাতে পারে বলেই গোয়েন্দা সূত্রে খবর মিলেছে। মার্কিন প্রশাসনের তরফেও বারবার জানানো হয়েছে, যতদিন যাচ্ছে, পরিস্থিতি ততই উত্তপ্ত হয়ে উঠছে। কোনওমতে বিমানবন্দর দখল করে রেখে উদ্ধারকার্য চালানো হচ্ছে। তালিবান বা অন্য কোনও সন্ত্রাসবাদী সংগঠন যে কোনও মুহূর্তে হামলা চালাতে পারে।

ব্রিটেন ও অস্ট্রেলিয়ার তরফে তাদের দেশের নাগরিকদের সতর্ক করার পর আমেরিকার তরফেও নিজেদের দেশের নাগরিকদের বলা হয়েছে, তারা যেন আপাতত বিমানবন্দরে না আসেন। বিমানবন্দরের ভিতরে কোনও বিপদ না থাকলেও গেটের বাইরে বড় বিপদের সম্ভাবনা রয়েছে। যারা অ্যাবেয় গেট, পূর্ব বা উত্তর গেটে রয়েছেন, তারা যেন দ্রুত ওই স্থান ছেড়ে চলে যান এবং নিরাপদ কোনও জায়গায় আশ্রয় নেন।

অস্ট্রেলিয়ার তরফেও জানানো হয়েছে, বর্তমানে কাবুল বিমানবন্দরের আশেপাশের পরিস্থিতি ভয়াবহ। বিপুল সংখ্যক মানুষ বিমানবন্দরের বাইরে জমায়েত করে থাকায় সংঘর্ষ বা বড় কোনও বিপদের সম্ভাবনা রয়েছে। সন্ত্রাসবাদী হামলার সম্ভাবনাও রয়েছে। সুতরাং হামিদ কারজ়াই বিমানবন্দরে আপাতত কেউ যাবেন না। যদি বিমানবন্দরের আশেপাশেই থাকেন, তবে দ্রুত নিরাপদ আশ্রয় নিন। পরবর্তী নির্দেশ না আসা অবধি বিমানবন্দরের ধারে কাছে কেউ যাবেন না।

এ দিকে, আজই কাবুল থেকে প্রায় ১৮০ জন যাত্রীকে নিয়ে দেশে ফেরার কথা একটি সামরিক বিমানের। এখনও অবধি প্রায় ৮০০ নাগরিককে আফগানিস্তান থেকে ফিরিয়ে আনা হয়েছে। কিন্তু এখনও বেশ কিছু ভারতীয় আটকে রয়েছে বলে জানা গিয়েছে। সন্ত্রাসবাদী হামলার সতর্কতা জারি হওয়ায় আগামিদিনের উদ্ধারকার্য কীভাবে চলবে এবং ৩১ অগস্টের মধ্যেই বা কী করে উদ্ধারকার্য শেষ হবে, তা নিয়ে সংশয় দেখা গিয়েছে। আরও পড়ুন: বৈধ কাগজ থাকলে দেশ ছাড়তে পারবেন আফগানরাও, জার্মানিকে প্রতিশ্রুতি তালিবানের 

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla