Heart Failure: অ্যাসপিরিন গ্রহণে বাড়তে পারে হৃদরোগের ঝুঁকি! দাবি জানাচ্ছে গবেষণা

যে সব ব্যক্তিরা অ্যাসপিরিন গ্রহণ করেন, তাঁদের মধ্যে হার্ট ফেলিয়রের ঝুঁকি অন্যান্যদের তুলনায় ২৬ শতাংশ বেশি।

Heart Failure: অ্যাসপিরিন গ্রহণে বাড়তে পারে হৃদরোগের ঝুঁকি! দাবি জানাচ্ছে গবেষণা
যে সব ব্যক্তিরা অ্যাসপিরিন গ্রহণ করেন, তাঁদের মধ্যে হার্ট ফেলিয়রের ঝুঁকি অন্যান্যদের তুলনায় ২৬ শতাংশ বেশি।

সম্প্রতি ইএসসি হার্ট ফেলিয়র জার্নাল নামক একটি গবেষণাপত্র প্রকাশিত হয়েছে। সেখান থেকে জানা গিয়েছে, যে সব ব্যক্তিরা অ্যাসপিরিন গ্রহণ করেন, তাঁদের মধ্যে হার্ট ফেলিয়রের ঝুঁকি অন্যান্যদের তুলনায় ২৬ শতাংশ বেশি। তাছাড়াও হার্ট ফেলিয়রের সঙ্গে ধূমপান, স্থূলতা, উচ্চ রক্তচাপ, উচ্চ কোলেস্টেরল, ডায়াবেটিস এবং কার্ডিওভাসকুলার রোগও রয়েছে।

জার্মানির ফ্রেইবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যয়ন লেখক ডঃ ব্লেরিম মুজাজ এই বিষয়ে জানিয়েছেন যে, হার্ট ফেলিয়রের ঝুঁকি সেই সব ব্যক্তিদের মধ্যে বেশি যাঁরা অ্যাসপিরিন গ্রহণ করেন। যদিও অনুসন্ধানগুলির নিশ্চিতকরণের প্রয়োজন রয়েছে, তবে দেখা গেছে যে হার্ট ফেলিয়রের সঙ্গে অ্যাসপিরিনের সম্পর্ক রয়েছে।

তবে হৃদযন্ত্রের ব্যর্থতার উপর অ্যাসপিরিনের প্রভাব বিতর্কিত। এই গবেষণার লক্ষ্য ছিল হৃদরোগের আক্রান্ত এবং হৃদরোগে আক্রান্তহীন ব্যক্তিদের মধ্যে হার্ট ফেলিয়রের ঘটনাকে মুল্যায়ন করা এবং মূল্যায়ন করা হয়েছে যে ওই ওষুধটি ব্যবহার করা ব্যক্তিদের মধ্যে হার্ট ফেলিয়রের ঘটনা সম্পর্কিত কিনা।

বিশ্লেষণে ৩০,৮২৭ জন ব্যক্তি এই হার্ট ফেলিয়রের ঝুঁকিতে ছিলেন, যাঁরা পশ্চিম ইউরোপ এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে HOMAGE  গবেষণায় নথিভুক্ত হয়েছিলেন। ধূমপান, স্থূলতা, উচ্চ রক্তচাপ, উচ্চ কোলেস্টেরল, ডায়াবেটিস এবং কার্ডিওভাসকুলার রোগকে “ঝুঁকিপূর্ণ” হিসাবে সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে।

এই গবেষণায় অংশগ্রহণকারীদের বয়স ৪০ বছর বা তার বেশি ছিল এবং তাঁরা প্রাথমিক ভাবে হার্ট ফেলিয়রের ঝুঁকি থেকে মুক্ত ছিল। এখানে দুটি তালিকা করা হয়েছিল, প্রথম যাঁরা অ্যাসপিরিন ব্যবহার করেন এবং যাঁরা অ্যাসপিরিন ব্যবহার করেন না। প্রথমে  অংশগ্রহণকারীদের হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার জন্য মারাত্মক বা মারাত্মক নয় এমন হার্ট ফেলিয়রের ঘটনার জন্য অনুসরণ করা হয়েছিল।

এখানে অংশগ্রহণকারীদের গড় বয়স ছিল ৬৭ বছর এবং যার মধ্যে ৩৪ শতাংশ ছিলেন মহিলা। প্রাথমিক স্তরে, মোট ৭,৬৯৮ অংশগ্রহণকারী (২৫ শতাংশ) অ্যাসপিরিন গ্রহণ করছিলেন। ৫.৩ বছরের ধরে অনুসরণ করার পর, ১,৩৩০ অংশগ্রহণকারীদের হৃদযন্ত্র বিকল হয়ে গিয়েছিল।

অংশগ্রহণকারীদের লিঙ্গ, বয়স, শরীরের ভর সূচক, ধূমপান, অ্যালকোহল ব্যবহার, রক্তচাপ, হৃদস্পন্দন, রক্তের কোলেস্টেরল, ক্রিয়েটিনিন, উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস, কার্ডিওভাসকুলার রোগ এবং রেনিন-অ্যাঞ্জিওটেনসিন-অ্যালডোস্টেরন-সিস্টেম ইনহিবিটর, ক্যালসিয়াম চ্যানেল ব্লকার, মূত্রবর্ধক, বিটা-ব্লকার এবং লিপিড-কমানোর ওষুধের সঙ্গে চিকিৎসা করার পরে, অ্যাসপিরিন ব্যবহার এবং হার্ট ফেলিয়রের মধ্যে সম্পর্ক মূল্যায়ন করা হয়েছে।

ফলাফলের ধারাবাহিকতা পরীক্ষা করার জন্য, হার্ট ফেলিয়রের ব্যর্থতার ঝুঁকির কারণগুলির সঙ্গে যাঁরা অ্যাসপিরিন ব্যবহার করেন এবং যাঁরা ব্যবহার করেন না উভয়ের সঙ্গে মেলানোর পর বিশ্লেষণটি পুনরাবৃত্তি করা হয়েছে। এই মিল বিশ্লেষণে দেখা গেছে, অ্যাসপিরিন গ্রহণ করলে হার্ট ফেলিয়রের ঝুঁকি ২৬ শতাংশ বেড়ে যায়।

এই বিষয়ে আরও জানার জন্য কার্ডিওভাসকুলার রোগের ইতিহাস যুক্ত রোগীদের বাদ দেওয়ার পরে বিশ্লেষণটি পুনরাবৃত্তি করা হয়। সেখানে দেখা যায় যে কার্ডিওভাসকুলার রোগ মুক্ত ২২,৬৯০ জন অংশগ্রহণকারীর (৭৪ শতাংশ) মধ্যে অ্যাসপিরিন ব্যবহার করায় তাঁদের মধ্যে হার্ট ফেলিয়রের ঝুঁকি ২৭ শতাংশ বেড়ে গেছে।

ডঃ মুজাজ বলেন, “এটি ছিল প্রথম বড় গবেষণা, যেখানে হৃদরোগ এবং কমপক্ষে একটি ঝুঁকির কারণ সহ এবং ছাড়া ব্যক্তিদের মধ্যে অ্যাসপিরিন ব্যবহার এবং হৃদযন্ত্রের ব্যর্থতার মধ্যে সম্পর্ক অনুসন্ধান করা হয়েছে। অ্যাসপিরিন সাধারণত ব্যবহৃত করা হয়েছে – আমাদের গবেষণায় প্রতি চারজন অংশগ্রহণকারীর মধ্যে একজন ওষুধ গ্রহণ করছিলেন। এই জনসংখ্যায়, অ্যাসপিরিন ব্যবহার অন্যান্য ঝুঁকির কারণগুলি থেকে আলাদা এবং হৃদযন্ত্রের ব্যর্থতার সঙ্গে যুক্ত।”

আরও পড়ুন: ওজন কমাতে গিয়ে চুল পড়ার সমস্যা দেখা দিয়েছে? জানুন এর পিছনে কোন কারণগুলি দায়ী

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla