কৃষি আইনের বর্ষপূর্তিতে ‘কালা দিবসে’র ডাক আকালি দলের, অশান্তির আশঙ্কায় বন্ধ দিল্লি সীমানা

Farmers Protest: এই মিছিলের নেতৃত্ব দেবেন আকালি দলের প্রেসিডেন্ট সুখবীর সিং বাদল ও সাংসদ হরসিমরত কৌর বাদল। প্রতিবাদ মিছিল প্রসঙ্গে শিরোমণি আকালি দলের সাধারণ সম্পাদক প্রেম সিং চান্দুমাজরা জানান, শান্তিপূর্ণভাবেই এই মিছিল করা হবে।

কৃষি আইনের বর্ষপূর্তিতে 'কালা দিবসে'র ডাক আকালি দলের, অশান্তির আশঙ্কায় বন্ধ দিল্লি সীমানা
রাস্তায় বসে প্রতিবাদ কৃষকদের।

নয়া দিল্লি: কেন্দ্রের আনা তিন কৃষি আইনে(Farm Laws)-র বর্ষপূর্তিতেও প্রতিবাদে পঞ্জাবের কৃষকরা। শিরোমণি আকালি দলের (Shiromani Akali Dal) নেতৃত্বে এ দিন “ব্ল্যাক ফ্রাইডে” হিসাবে ঘোষণা করা হয়েছে এবং দিল্লিতে প্রতিবাদ মিছিল বের করার পরিকল্পনা রয়েছে। এ দিকে, অশান্তির আশঙ্কায় ইতিমধ্যেই দিল্লি সীমানা(Delhi Border)-গুলি ঘিরে ফেলা হয়েছে। ঘিরে ফেলা হয়েছে রাকাবগঞ্জ সাহিব গুরুদ্বারও।

কৃষি আইনের বিরোধিতায় গত নভেম্বর থেকে দিল্লির তিন সীমানায় যে আন্দোলন চালাচ্ছে পঞ্জাব, হরিয়ানা সহ দেশের বিভিন্ন প্রান্তের কৃষকরা, সেই আইনেরই বর্ষপূর্তি আজ। এই দিনটিকে কালা দিবস হিসাবে পালন করতেই পঞ্জাবের শিরোমণি আকালি দল সকাল সাড়ে নটায় রাকাবগঞ্জ সাহিব গুরুদ্বার থেকে সংসদ ভবন অবধি প্রতিবাদ মিছিলের ডাক দিয়েছে।

জানা গিয়েছে, এই মিছিলের নেতৃত্ব দেবেন আকালি দলের প্রেসিডেন্ট সুখবীর সিং বাদল ও সাংসদ হরসিমরত কৌর বাদল। প্রতিবাদ মিছিল প্রসঙ্গে শিরোমণি আকালি দলের সাধারণ সম্পাদক প্রেম সিং চান্দুমাজরা জানান, শান্তিপূর্ণভাবেই এই মিছিল করা হবে। তিনি বলেন, “আমরা শান্তিপূর্ণভাবেই মিছিল করব। সরকারের কাছে আমরা তিনটি কৃষি আইন প্রত্যাহার করার আবেদন জানিয়ে একটি স্মারকপত্র জমা দেব। যদি আমরা প্রতিবাদ মিছিলের অনুমতি না পাই, তবে আমরা শান্তিপূর্ণভাবেই মিছিল করে সরকারের হাতে ওই স্মারকলিপি জমা দেব।”

এদিকে, পঞ্জাবের রাজনৈতিক দলের মিছিল ঘিরে রাজধানীতে হিংসা ছড়াতে পারে, এই আশঙ্কায় গোটা দিল্লিই নিরাপত্তার চাদরে মুড়ে ফেলা হয়েছে। বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে সীমানায় প্রবেশের পথগুলি। দিল্লি পুলিশের এই পদক্ষেপে আকালি দলের তরফে ক্ষোভ প্রকাশ করে বলা হয়, “আজকের আন্দোলনে যোগ দিতে আকালি দল ও যে সকল কৃষকরা আসছেন, তাদের সংখ্যা দেখেই রাকাব গঞ্জ সাহিব গুরুদ্বার ঘিরে ফেলা হয়েছে। পঞ্জাবীদের প্রবেশ করতে দেওয়া হচ্ছে না। এটাই মনে করিয়ে দিচ্ছে আমরা কোন অন্ধকার সময়ে, স্বৈরতন্ত্রে বসবস করছি।”

তাদের অভিযোগ, পঞ্জাব থেকে আগচত যে কোনও গাড়িকেও দিল্লি সীমানা আটকে দেওয়া হচ্ছে, বৈধ কাগজ থাকা সত্ত্বেও তাদের দিল্লিতে প্রবেশ করতে দেওয়া হচ্ছে না। আকালি দলের তরফে এই বিষয়ে টুইটে বলা হয়, “সমস্ত দিল্লি সীমানাই বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে, পঞ্জাবীদের দিল্লিতে প্রবেশ করতে দেওয়া হচ্ছে না। বাকি রাজ্যের গাড়িগুলিকে যেতে দেওয়া হলেও পঞ্জাবে রেজিস্টার গাড়িগুলিকেই আটকে দেওয়া হচ্ছে এবং বলা হচ্ছে, রাজ্যে প্রবেশ নিষেধ। আমাদের শান্তিপূর্ণ আন্দোলন দেখেই ভয় পেয়েছে ক্ষমতায় বসে থাকা প্রশাসন।”

২০২০ সালে সেপ্টেম্বর মাসে কৃষি আইন পাস করা হয়। এরপরই বিভিন্ন রাজ্যে কৃষি আইনের প্রতিবাদে আন্দোলন শুরু হয়। নভেম্বর মাসে সেই আন্দোলনই দিল্লির দোরগোড়ায় এসে পৌঁছয়। কৃষি আইন প্রত্য়াহার ও উৎপাদিত ফসলের ন্যূনতম সহায়ক মূল্য নিশ্চিত করার দাবিতেই কৃষকরা প্রতিবাদ চালিয়ে যাচ্ছে এখনও।

আরও পড়ুন: Narendra Modi Birthday: মেহসানার মাঝারি মানের পড়ুয়াই আজ প্রধানমন্ত্রী, কেমন ছিল নমোর শৈশব? 

Read Full Article

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla