তাউটের তাণ্ডবে অন্তত ২১ জনের মৃত্যু, ঘরছাড়া অগণিত

তাউটের তাণ্ডবে মহারাষ্ট্রে ৬ জনের মৃত্যু ও ৯ জন আহত হয়েছেন বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে।

তাউটের তাণ্ডবে অন্তত ২১ জনের মৃত্যু, ঘরছাড়া অগণিত
ছবি - পিটিআই

নয়া দিল্লি: ধ্বংসলীলা দেখাল বছরের প্রথম ঘূর্ণিঝড় তাউটে (Tauktae)। সন্ধে থেকে শুরু করে একেবারে মধ্যরাত, তাউটে তাণ্ডব কেড়ে নিল একাধিক প্রাণ। সোমবার সন্ধে সাড়ে ৮টা নাগাদ গুজরাটে আছড়ে পড়ে অত্যন্ত শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় তাউটে। সর্বোচ্চ ১৯০ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টায় ঝোড়ো হাওয়ার সম্মুখীন হয় গুজরাট উপকূল। মধ্যরাতে কিছুটা শান্ত হয় তেজি তাউটে। পরবর্তীকালে ক্ষমতা হারিয়ে অত্যন্ত শক্তিশালী থেকে শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হয় তাউটে।

বছরের প্রথম ঘূর্ণিঝড়ের দাপটে সমুদ্রে জলস্তরের উচ্চতা বৃদ্ধি পায়। পাশাপাশি দিউ এলাকায় ১৩৩ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টা বেগে বাতাস বইতে থাকে। তাউটের তাণ্ডবে মহারাষ্ট্রে ৬ জনের মৃত্যু ও ৯ জন আহত হয়েছেন বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে। ব্যাহত হয়ে গিয়েছিল যান চলাচল। তাউটে তাণ্ডবের পর তড়িঘড়ি পর্যালোচনা মিটিং করেন উদ্ধব ঠাকরে।

এরপর মহারাষ্ট্র জুড়ে শুরু হয় রাস্তায় উপড়ে পড়ে থাকা গাছ ও বৈদ্যুতিক খুঁটি সরিয়ে ফেলার। পরবর্তীকালে উদ্ধব ঠাকরের অফিসের তরফে টুইটে জানানো হয়, স্বাভাবিক হয়েছে যান চলাচল। মুম্বইয়ে হাওয়ার সর্বোচ্চ গতিবেগ ছিল ১১৪ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টায়। পাশাপাশি ভারী বৃষ্টিপাতের জেরে দীর্ঘক্ষণ বন্ধ ছিল বিমান পরিষেবা। একাধিক অঞ্চল জলমগ্ন হয়েছিল বলেও জানা গিয়েছে।

Cyclone Tauktae

ছবি- পিটিআই

কর্নাটকে তাউটের চোখরাঙানিতে ৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ৭ জেলার ১২১টি গ্রাম। কেরলে ৭ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। সে রাজ্যে ঘূর্ণিঝড়ের দাপটে ১,৫০০ বাড়ি সম্পূর্ণ ধ্বংস হয়ে গিয়ছে বলে জানিয়েছেন পিনারাই বিজয়ন।

গুজরাট আগেই উপকূলবর্তী এলাকা থেকে ১ লক্ষ মানুষকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নিয়েছিল। ভারী বৃষ্টিপাতের জেরে সেখানে একাধিক রাস্তা জলমগ্ন হয়ে বন্যার পরিস্থিতি তৈরি হয়। আবহওয়া দফতর জানিয়েছে, সৌরাষ্ট্র ও দিউ এলাকায় মঙ্গলবারও ভারী বৃষ্টিপাত চলবে। মধ্য প্রদেশ ও উত্তর প্রদেশের একাধিক অঞ্চলেও ভারী বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা থাকছে মঙ্গলবার।

আরও পড়ুন: গুজরাটের উপকূলে আছড়ে পড়ল তাউটে, শুরু তাণ্ডব, বাড়ছে মৃতের সংখ্যা