‘খবর প্রকাশের আগে সত্যিটা জানা জরুরি’, সংবাদমাধ্যমের অফিসের আয়কর হানার পর মুখ খুলল কেন্দ্র

দৈনিক ভাস্কর (Dainik Bhashkar) গ্রুপের একাধিক অফিসে আজ হানা দেয় আয়কর বিভাগ। দিল্লি, মধ্য প্রদেশ, রাজস্থান, গুজরাট ও মহারাষ্ট্রের অফিসে এ দিন সকালে হানা দেয় আয়কর দফতর।

  • Publish Date - 5:22 pm, Thu, 22 July 21 Edited By: tannistha bhandari
'খবর প্রকাশের আগে সত্যিটা জানা জরুরি', সংবাদমাধ্যমের অফিসের আয়কর হানার পর মুখ খুলল কেন্দ্র
অনুরাগ ঠাকুর (ফাইল ছবি)

নয়া দিল্লি: সংবাদমাধ্যম ‘দৈনিক ভাস্কর’-এর একাধিক অফিসে হানা দিয়েছে আয়কর দফতরের আধিকারিকরা। বৃহস্পতিবার এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে মুখ খুলেছেন একাধিক বিরোধী নেতা। আর সেই প্রসঙ্গেই কেন্দ্রীয় মন্ত্রী জানালেন, এতে কেন্দ্রীয় সরকাররে কোনও হাত নেই। তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুর বলেন, ‘এজেন্সি এজেন্সির কাজ করে। এতে আমরা হস্তক্ষেপ করি না।’ তবে তথ্য যাচাই করে সংবাদ প্রকাশ করা উচিৎ বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি।

আয়কর দফতর হানা দেওয়ার কয়েক ঘণ্টা পর সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে অনুরাগ ঠাকুর বলেন, ‘আমি এ কথাও উল্লেখ করতে চাই যে, সত্যিটা যাচাই না করে সংবাদ প্রকাশ করা উচিৎ নয়। অনেক সময় অনেক খবর ভুল পথে চালিত করে বা তথ্যের অভাব থাকে।’

‘দৈনিক ভাস্কর’ ও ‘ভারত সমাচার’ নামে দুই সংবাদমাধ্যমের অফিসে ও তাদের কর্মীদের বাড়িতে হানা দেন আয়কর দফতরের আধিকারিকরা। এই ঘটনার পর ‘দৈনিক ভাস্কর’ তাদের ওয়েবসাইটে একটি বার্তায় লিখেছে যে, করোনার দ্বিতীণ তরঙ্গের সময় সরকারে ব্যর্থতার ছবি তুলে ধরাতেই এই তল্লাশি। সংস্থার তরফে বার্তা দেওয়া হয়েছে যে, ‘আমি স্বাধীন, কারণ আমি ভাস্কর। ভাস্কর শুধু সেটাই লেখে, যা পাঠক চায়।’

সংস্থার তরফ থেকে জানানো হয়েছে তাঁদের অফিস ছাড়াও তাঁদের এডিটর-ইন-চিফ ব্রজেশ মিশ্র সহ অনেক কর্মীর বাড়িতেই হানা দিয়েছে আয়কর দফতর। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সহ অনেকেই এই ঘটনার তীব্র নিন্দা করেছেন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় টুইটে লিখেছেন, ‘সাংবাদিকদের ওপর এই আক্রমণ গণতন্ত্রের কন্ঠরোধ করার আরও একটা চেষ্টা। নরেন্দ্র মোদী করোনা পরিস্থিতি সামলাতে পারেনি, আর সেটাই সাহস করে সামনে এনেছিল দৈনিক ভাস্কর।

কংগ্রেস নেতা তথা মধ্য প্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী দ্বিগ্বিজয় সিং টুইট করে জানান, ভোপালের প্রেস কমপ্লেক্সের অফিস সহ দেশের প্রায় ৬টি রাজ্যে দৈনিক ভাস্করের অফিসে আয়কর বিভাগের আধিকারিকেরা হানা দিয়েছেন। এখনও তল্লাশি অভিযান চলছে। সংবাদ পত্রের এক সম্পাদক জানান, জয়পুর, আহমেদাবাদ, ভোপাল ও ইন্দোরের অফিসে তল্লাশি অভিযান চলছে। আরও পড়ুন: মন্ত্রীর হাত থেকে ‘স্টেটমেন্টে’র কাগজ টেনে ছিঁড়ে ফেললেন তৃণমূল সাংসদ, রাজ্যসভায় নাটক চরমে

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla