বিশ্বের প্রথম ‘ফ্লায়িং রেসিং কার’, দেখুন এই ইলেকট্রিক গাড়ির খুঁটিনাটি

Airspeeder Mk3- বিশ্বের প্রথম ফ্লায়িং রেসিং কার। ব্যাটারির সাহায্যে চলবে এই গাড়ি।

বিশ্বের প্রথম 'ফ্লায়িং রেসিং কার', দেখুন এই ইলেকট্রিক গাড়ির খুঁটিনাটি
বিশ্বের প্রথম ইলেকট্রিক ফ্লায়িং রেসিং কার।

বিশ্বের প্রথম উড়ন্ত রেসিং কার Airspeeder Mk3- এর প্রথম লুক প্রকাশ্যে এসেছে। এই remotely-piloted গাড়িই বিশ্বের প্রথম এমন উড়ন্ত গাড়ি যার পুরোপুরি কাজকর্ম নিয়ন্ত্রণ হবে ইলেকট্রিকে। আপাতত এই ফ্লায়িং রেসিং কারের উৎপাদন হবে দক্ষিণ অস্ট্রেলিয়ার অ্যাডিলেডের ‘স্পোর্টস টেকনিক্যাল হেডকোয়ার্টার’-এ। এই ফ্লায়িং রেস কারের বিভিন্ন ফিচারও প্রকাশ্যে এনেছে Airspeeder। উন্নত মানের এই গাড়ি আরও ১০টি নির্মাণ করছে Alauda Aeronautics (sister-company to Airspeeder) নামের এক সংস্থা। আগামী কয়েক মাসে তিনটি মহাদেশের বিভিন্ন রেসে এই ১০টি ফ্লায়িং রেস কার অংশগ্রহণ করবে।

বিশ্বের প্রথম ইলেকট্রিং ফ্লায়িং রেসিং কারের ডিজাইনার হলেন ফেলিক্স পিয়েরন। রয়্যাল অ্যাকাডেমি অফ আর্টের এই গ্র্যাজুইয়েট গাড়ির ঝকঝকে ডিজাইন তৈরি করেছেন। ঠিক যেভাবে গাড়ির স্টিয়ারিংয়ে চালক বসেন, তেমনই এই ফ্লায়িং রেসিং কারের ককপিটে পাইলট বসবেন।

The Mk3 remotely-piloted electric flying racing car

এই গাড়ি সর্বোচ্চ ৩২০kW শক্তি উৎপাদন করয়ে পারে। এই ক্ষমতা অডি এসকিউ৭ এসইউভি-র সমান। Airspeeder-এর এই রেসিং ক্র্যাফটের ওজন (পাইলট ছাড়া) ১৩০ কিলোগ্রাম। ৮০ কেজির বেশি ওজন বহন করতে পারে এই ফ্লায়িং রেসিং কার। একদম স্থির অবস্থা অর্থাৎ শূন্য থেকে ১০০ কিলোমিটা/ঘণ্টা স্পিড তুলতে এই গাড়ির সময় লাগে ২.৮ সেকেন্ড। এই গাড়িকে অনেকাংশেই ফর্মুলা ১ রেসিং কারের সঙ্গে তুলনা করা সম্ভব।

আরও পড়ুন- করোনার দাপট দেশজুড়ে, এর মধ্যেই এপ্রিল মাসে কোন স্কুটারের বিক্রি হয়েছে কেমন? দেখে নিন

Airspeeder-এর এই গাড়িতে রয়েছে উন্নত ধরনের ‘স্লাইড অ্যান্ড লক’ সিস্টেম। Alauda-র ইঞ্জিনিয়াররা এই সিস্টেম তৈরি করেছেন। এর সাহায্যে গাড়ি থেকে দ্রুত বেরনো সম্ভব। এছাড়া ভূমিতে থাকার সময় ব্যাটারি পরিবর্তন সম্ভব। Mk3- তেই এই প্রযুক্তির অভিষেক হয়েছে। মাটিতে থেকে একজন রিমোট অপারেটিং এক্সপার্ট Mk3 চালাতে বা ওড়াতে পারবেন। এই ফ্লায়িং রেসিং কারে এমনই অত্যাধুনিক প্রযুক্তির ফিচার রয়েছে যা এর আগে কোনও eVTOL craft-এ দেখা যায়নি। এছাড়াও এখানে রয়েছে LiDAR এবং Radar সিস্টেম, যার সাহায্যে সংঘর্ষ এড়িয়ে সুস্থভাবে কার রেসিং সম্ভব।