‘মায়ের চিত্‍কার শুনে ছুটে গিয়ে দেখি…’, ৯৫ বছরের বৃ্দ্ধার খাটে ‘আপত্তিকর অবস্থায়’ যুবক!

Crime: এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে শুক্রবার গ্রামে একটি সালিশি সভা বসে। সেই সালিশি সভায় গ্রামের পঞ্চায়েতসপ্রধানও উপস্থিত ছিলেন।

‘মায়ের চিত্‍কার শুনে ছুটে গিয়ে দেখি…’, ৯৫ বছরের বৃ্দ্ধার খাটে ‘আপত্তিকর অবস্থায়’ যুবক!
নির্যাতিতা বৃদ্ধা, নিজস্ব চিত্র

জলপাইগুড়ি: ৯৫ বছরের এক শয্যাশায়ী  বৃদ্ধাকে ধর্ষণের (Rape) অভিযোগ উঠল বছর ত্রিশের প্রতিবেশী যুবকের বিরুদ্ধে। ঘটনায় চাঞ্চল্য় ছড়িয়েছে জলপাইগুড়ির সদর ব্লকের সন্ন্যাসী পাড়ায়। নিগৃহীতা বৃদ্ধার  ছেলের অভিযোগ, বৃহস্পতিবার রাতে আচমকা তাঁর মায়ের ঘর থেকে  চিত্‍কার শুনতে  পেয়ে ওই প্রতিবেশী যুবককে ‘আপত্তিকর অবস্থায়’ আবিষ্কার করেন। এরপর, গ্রামে, সালিশি সভাও বসে।

নির্যাতিতা বৃদ্ধার ছেলে সুশীল মণ্ডলের অভিযোগ, বেশ কিছু বছর ধরে বার্ধক্যজনিত অসুখের জেরেই ওই বৃদ্ধা শয্য়াশায়ী। অভিযোগ, বৃহস্পতিবার রাতে আচমকা ঘর থেকে নিজের মায়ের চিত্‍কার শুনতে পান সুশীলবাবু। ছুটে এসে দেখেন বৃদ্ধার বিছানায় ‘আপত্তিকর অবস্থায়’ ঢুকে বসে আছেন প্রতিবেশী যুবক বলে অভিযোগ। তাঁকে টেনে নামাতে গিয়েই  ছুটে পালিয়ে যান অভিযুক্ত।

এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে শুক্রবার গ্রামে একটি সালিশি সভা বসে। সেই সালিশি সভায় গ্রামের পঞ্চায়েত প্রধানও উপস্থিত ছিলেন। কিন্তু সেই সভায় নিজের দোষ সম্পূর্ণ অস্বীকার করে সভা ছেড়ে ওই যুবক পালিয়ে যান বলে অভিযোগ। তখনকার মতো সমস্যা মিটে গেলেও শনিবার সকালে বৃদ্ধার শয্যা পরিষ্কার করতে গিয়ে কিছু সন্দেহজনক দাগ আবিষ্কার করেন সুশীলবাবু। সেই দাগ দেখেই সন্দেহ হয় তাঁর। সঙ্গে সঙ্গে শনিবার রাতে কোতোয়ালি থানায় অভিযোগ দায়ের করে বৃদ্ধার পরিবার।

সুশীলবাবুর কথায়, “ওদিন রাতে আমি অন্য ঘরে ছিলাম। হঠাত্‍ শুনি মা চিত্‍কার করছে ‘বাঁচাও বাঁচাও’ বলে। সঙ্গে সঙ্গে ছুটে যাই মায়ের ঘরে। গিয়ে দেখি, মায়ের খাটের ওপর আপত্তিকর অবস্থায় বসে রয়েছে আমাদেরই প্রতিবেশী। ওকে টেনে ধরে নীচে নামাতেই পালিয়ে যায়।” জলপাইগুড়ির কোতায়ালি থানার পুলিশ জানিয়েছে, লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। পলাতক অভিযুক্তের খোঁজ করা হচ্ছে। আরও পড়ুন: চুক্তিপত্রে সই করে আর্থিক লেনদেন? বাঁকুড়া শিশুপাচারকাণ্ডে চাঞ্চল্যকর তথ্য সিআইডির হাতে

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla