Jalpaiguri: সাড়ে ৭ বছর ধরে জেলে কাটিয়ে জামিন শিশুপাচার কাণ্ডে অভিযুক্তের

Child Trafficking Case: ২০১৬ সালে জলপাইগুড়ির একটি হোম থেকে ১৭টি শিশুকে অবৈধভাবে দত্তক দেওয়ার অভিযোগ উঠেছিল। সেই মামলায় গ্রেফতার হয়েছিলেন জলপাইগুড়ির নর্থ বেঙ্গল পিপলস ডেভেলপমেন্ট সেন্টারের তৎকালানী চেয়ারপার্সন চন্দনা চক্রবর্তী। অবশেষে জলপাইগুড়ি সার্কিট বেঞ্চের বিচারপতি জয়মাল্য বাগচি ও বিচারপতি অজয়কুমার গুপ্তার ডিভিশন বেঞ্চ তাঁর জামিন মঞ্জুর করেছে।

Jalpaiguri: সাড়ে ৭ বছর ধরে জেলে কাটিয়ে জামিন শিশুপাচার কাণ্ডে অভিযুক্তের
হাইকোর্টের জলপাইগুড়ি সার্কিট বেঞ্চImage Credit source: TV9 Bangla
Follow Us:
| Edited By: | Updated on: May 20, 2024 | 6:13 PM

জলপাইগুড়ি: প্রায় সাড়ে সাত বছর জেল কাটিয়ে অবশেষে জামিন পেলেন জলপাইগুড়িতে শিশুপাচার কাণ্ডের অন্যতম অভিযুক্ত। ২০১৬ সালে জলপাইগুড়ির একটি হোম থেকে ১৭টি শিশুকে অবৈধভাবে দত্তক দেওয়ার অভিযোগ উঠেছিল। সেই মামলায় গ্রেফতার হয়েছিলেন জলপাইগুড়ির নর্থ বেঙ্গল পিপলস ডেভেলপমেন্ট সেন্টারের তৎকালানী চেয়ারপার্সন চন্দনা চক্রবর্তী। অবশেষে জলপাইগুড়ি সার্কিট বেঞ্চের বিচারপতি জয়মাল্য বাগচি ও বিচারপতি অজয়কুমার গুপ্তার ডিভিশন বেঞ্চ তাঁর জামিন মঞ্জুর করেছে।

২০১৬ সালে ওই অভিযোগ ওঠার পর ২০১৭ সালে তদন্তভার গিয়েছিল সিআইডির হাতে। সে বছরই ফেব্রুয়ারিতে গ্রেফতার হয়েছিলেন চন্দনা চক্রবর্তী। গ্রেফতার করা হয়েছিল জলপাইগুড়ির ওই হোমের অ্যাডপ্টশন অফিসার সোনালি মণ্ডলকেও। পরবর্তীকে আরও একাধিক জনকে গ্রেফতার করা হয়েছিল ওই মামলার তদন্তে। ওই হোম থেকে বেশ কিছু নথিপত্রও বাজেয়াপ্ত করেছিল সিআইডি। এদিন চন্দনা চক্রবর্তীর আইনজীবী সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় জানান, সুপ্রিম কোর্ট গত ৩ নভেম্বর বলেছিল, ৬ মাসের মধ্যে মামলার শুনানি শেষ করতে হবে। কিন্তু তারপরও ট্রায়াল কোর্টে শুনানি চলছিল। সেই কারণ হাইকোর্টের জলপাইগুড়ি সার্কিট বেঞ্চের ডিভিশন অভিযুক্ত চন্দনা চক্রবর্তীকে জামিন দিয়েছে।

অন্যদিকে সহকারি সরকারি আইনজীবী নিলয় চক্রবর্তীও জানান, সুপ্রিম কোর্ট থেকে এই মামলা সংক্রান্ত নির্দেশের কথা। পাশাপাশি এই মামলায় ৭৩ জন সাক্ষীর মধ্যে অধিকাংশেরই সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়েছে বলেও জানান সহকারি সরকারি আইনজীবী। সেই কারণেই আজ আদালত অভিযুক্ত চন্দনা চক্রবর্তীর জামিন মঞ্জুর করেছে বলে জানান তিনি।