Omicron in China: ওমিক্রনের উপস্থিতির খবর পেয়েই একের পর এক শহরে লকডাউন চিনে

Omicron in China: চিনের একাধিক শহরে লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। ওমিক্রনের গতিবিধির ওপর থাকে কড়া নজর।

Omicron in China: ওমিক্রনের উপস্থিতির খবর পেয়েই একের পর এক শহরে লকডাউন চিনে
দেশে বেড়েছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা (নিজস্ব ছবি)

বেজিং : বিতর্ক থাকলেও অনেকেই বিশ্বাস করেন যে চিন থেকেই কোভিড-১৯ এর সূত্রপাত। তারপরই ছড়িয়ে পড়ে বিশ্বের প্রায় সব দেশে। চিনে সংক্রমণ অন্যান্যদের থেকে আগে শুরু হলেও কড়া বিধি নিষেধে ভাইরাস অনেকটাই দূরে সরিয়ে দিতে পেরেছে চিন। তবে, ওমিক্রনের বাড়বাড়ন্ত আর এড়ানো গেল না। সম্পরতি বেশ কয়েকজন করোনা আক্রান্তের নমুনায় ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টের উপস্থিতি প্রমাণ মিলতেই তৎপর হল প্রশাসন। ফের লকডাউন জারি করে সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা টালানো হচ্ছে চিনে।

সোমবার চিনের হেনান প্রদেশে আনিয়াং-এ লকডাউন জারি করা হয়েছে। এই নিয়ে মোট চার শহরে লকডাউন ঘোষণা করল চিন। তিয়ানজিং, জিয়ং ও ইউঝাউতেও আগেই লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। এর ফলে সে দেশে প্রায় ৩ কোটি ৩০ লক্ষ মানুষ এখন কার্যত গৃহবন্দি। হেনান প্রদেশে মোট ৮৭ জন করোন আক্রান্ত হয়েছে, যার মধ্যে আনিয়াং-এ আক্রান্তদের অন্তত ২ জনের শরীরে রয়েছে ওমিক্রন। এই তথ্য প্রকাশ্যে আসার পরই লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। আনিয়াং শহরে রাস্তায় সব যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। সব বাসিন্দাদেরই বাড়িতে থাকতে বলা হয়েছে।

আদতে তিয়ানজিন শহর থেকে সংক্রমণ ছড়াচ্ছে বলে অনুমান করা হচ্ছে। আনিয়াং শহরে দুজনের শরীরে ওমিক্রনের উপস্থিতির খবর প্রকাশ্যে আসতেই দ্রুত লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। সব বাজারও বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। সোমবারের রিপোর্ট অনুযায়ী, চিনের হেল্থ কমিশন জানিয়েছে, নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছে ১১০ জন, যারা বিদেশ থেকে আসেনি। আমেরিকা থেকে আসা সব বিমানও বাতিল করে দেওয়া হয়েছে।

এ দিকে, তিয়ানজিন থেকে রাজধানী বেজিংয়ের দূরত্ব ১৫০ কিলোমিটার। সেখানে যাওয়ার সমস্ত ট্রেন বাতিল করে দেওয়া হয়েছে। নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে যানবাহন চলাচল। কড়া নজরদারি চালানো হচ্ছে সে শহরের প্রশাসনের তরফেও। করোনার নতুন ঢেউ রুখতে প্রথমদিন থেকেই তৎপর হয়েছে বেজিং। চিনে ওমিক্রনের উপস্থিতির খবর সামনে আসতেই প্রবল কড়াকড়ি করা হয়েছে সে দেশে। কার্যত আস্ত শহরগুলোকে ‘বন্দি’ করে ফেলা হয়েছে। জানা যাচ্ছে, তিয়ানজিনের দুজন আক্রান্ত হওয়ার খবর সামনে আসতেই সবার করোনা পরীক্ষা করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন : Corona Outbreak: একদিনে ১০ লক্ষের বেশি সংক্রমণ, করোনা আক্রান্তদেরও ‘ছুটি’ নেই আমেরিকায়

এ ছাড়া ইউঝাউ শহরেও তিনজনের নমুনায় করোনা সংক্রমণ ধরা পড়েছে। এরপরই ওই শহরেও লকডাউন জারি করা হয়েছে। গত রবিবার হেনান প্রদেশের ইউঝাউ শহরে দুজনের করোনা সংক্রমণ খবর সামনে আসার পর এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। প্রায় ১২ লক্ষ বাসিন্দা রয়েছে এই শহরে।

আরও পড়ুন : Coronavirus cases in India: কোভিডবিধি, টিকাকরণ, কারফিউ… এই তিন অস্ত্রেই ঘায়েল হতে পারে করোনা, মত এন কে অরোরার

Related News

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla