Two-Wheeler Insurance: দু-চাকার সওয়ারি আপনি? জানুন শর্ট টার্ম ও লং টার্ম পলিসির লাভ-ক্ষতি

ভারতে টু-হুইলার ইনসিওরেন্সের (Two-wheeler insurance) ছড়াছড়ি। তার মধ্যে থেকে সেরাটা বাছবেন কীভাবে?

Two-Wheeler Insurance: দু-চাকার সওয়ারি আপনি? জানুন শর্ট টার্ম ও লং টার্ম পলিসির লাভ-ক্ষতি
ফাইল চিত্র।

রাহুল চক্রবর্তী: এ দেশে মোটরসাইকেল থাকলে বিমা (Two-Wheeler Insurance) করানোও বাধ্যতামূলক, এছাড়া বাইক বা স্কুটার চালানোর কোনও উপায় নেই। মোটর ভেহিকেল আইনে এমনই শর্ত বেঁধে দেওয়া হয়েছে। এর অন্যথা হলেই মোটা জরিমানা। তবে আইনি বাধ্যবাধকতা ছাড়াও টু-হুইলার ইনসিওরেন্সের প্রয়োজনীয়তা সুদূরপ্রসারী। এটি একদিকে দুর্ঘটনা, চুরি বা প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের ফলে মোটরসাইকেলের কোনও ক্ষতি হলে অর্থনৈতিক রক্ষাকবচের ভূমিকা পালন করে। একইভাবে যে কোনও ধরনের তৃতীয় পক্ষের ঝুট-ঝামেলা থেকে বাইকের মালিককে আড়াল করে।

প্রকারভেদ:
ভারতের মতো একটি বৃহৎ বাজারে টু-হুইলার ইনসিওরেন্সের ছড়াছড়ি। তার মধ্যে থেকে নিজের প্রয়োজন অনুসারে সঠিক বিমা পলিসি বেছে নেওয়া কষ্টসাধ্য কাজ। বাজার চলতি মোটরসাইকেল বিমাগুলিকে বৃহত্তর প্রেক্ষিতে দু-ভাগে ভাগ করা যেতে পারে। এই দু’টি ভাগ হল: শর্ট টার্ম এবং লং টার্ম টু-হুইলার ইনসিওরেন্স ( Short and Long Term Two-Wheeler Insurance)।

মূল পার্থক্য:
উভয় ধরনের পলিসিই নিরাপত্তা ও দুর্ঘটনার ক্ষেত্রে বিমার সুরক্ষা দিয়ে থাকে। তবে শর্ট টার্ম এবং লং টার্ম টু-হুইলার ইনসিওরেন্স পলিসির মধ্যে মূল পার্থক্য হল বিমার মেয়াদ। লং টার্ম বাইক ইনসিওরেন্স পলিসিগুলি একলপ্তে সর্বোচ্চ ৫ বছরের জন্য কেনা যায়। মাঝে পলিসি রিনিউ করার কোনও প্রয়োজন হয় না। অন্যদিকে, শর্ট টার্ম পলিসি প্রতি বছরই রিনিউ করতে হয়। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে কোনও ব্যক্তি পলিসি রিনিউ না করালে বা রিনিউ করাতে ভুলে গেলে সেই সময় কোনও দুর্ঘটনা ঘটলে ক্ষতিপূরণ পাওয়া যাবে না।

এছাড়াও শর্ট টার্ম এবং লং টার্ম টু-হুইলার ইনসিওরেন্স পলিসির মধ্যে আরও কিছু গুরুত্বপূর্ণ পার্থক্য আছে। সেগুলি কী কী, দেখে নেওয়া যাক:

খরচ: যে কোনও বিমার সঙ্গে জুড়ে থাকে টাকার প্রশ্ন। বিশেষজ্ঞদের একাংশের মতে, খরচের নিরিখে শর্ট টার্মের তুলনায় লং টার্ম টু-হুইলার ইনসিওরেন্স পলিসি (Two-wheeler insurance) কেনা লাভজনক। তাঁদের ব্যাখ্যা, শর্ট টার্ম পলিসি প্রতি বছর রিনিউ করতে হয়। ফলে বিমার দাম বাড়লে গ্রাহকদের তা বর্ধিত দাম দিয়েই কিনতে হবে। অন্যদিকে, লং টার্ম টু-হুইলার ইনসিওরেন্স পলিসি তিন বছর বা পাঁচ বছর অন্তর রিনিউ করার পয়োজন পড়ে। ফলে মাঝের বছরগুলিতে প্রিমিয়াম বৃদ্ধির ধাক্কা সামলাতে হয় না।

বাছাইয়ের সুবিধা: কোনও ব্যক্তি শর্ট টার্ম টু-হুইলার ইনসিওরেন্স কিনলে প্রতি বছর রিনিউ করার সময় তাঁর পছন্দ মতো বিমার শর্তে পরিবর্তন করতে পারেন। কিন্তু লং টার্মের ক্ষেত্রে মেয়াদ থাকাকালীন বিমার শর্তে পরিবর্তন আনা যায় না। তা ছাড়া প্রতিযোগিতার বাজারে গ্রাহক টানতে টু-হুইলার বিমা সংস্থাগুলি মাঝেমধ্যে নানা অফার ও ছাড়ের কথা ঘোষণা করে। শর্ট টার্ম টু-হুইলার ইনসিওরেন্সের (Two-wheeler insurance) গ্রাহকরা প্রতি বছর সেই সুবিধা নিতে পারেন। দীর্ঘ মেয়াদি বিমা কিনলে ৩ বছর বা ৫ বছর পর্যন্ত অপেক্ষা করা ছাড়া কোনও উপায় নেই।

নো ক্লেম বোনাসের সুবিধা: বিমা ক্ষেত্রে ‘নো ক্লেম বোনাস’ বহুল প্রচলিত একটি শব্দবন্ধ। কোনও বছরে ক্লেম জমা না দিলে বিমাকারীকে পলিসি রিনিউ করার সময় বোনাস হিসেবে একটি ছাড় দিয়ে থাকে বিমা সংস্থাগুলি। পরিসংখ্যান বলছে, বিমা সংস্থাগুলি স্বল্প মেয়াদি টু-হুইলার ইনসিওরেন্স পলিসির তুলনায় দীর্ঘ মেয়াদির ক্ষেত্রে নো ক্লেম বোনাস হিসেবে বেশি ছাড় দিয়ে থাকে। এমনকী প্রথম ক্লেম-মুক্ত পলিসি বছরের ক্ষেত্রে এর পরিমাণ ২০% পর্যন্ত হতে পারে।

রাইডারের সুবিধা: বেসিক বিমার সঙ্গে অতিরিক্ত সুবিধা যুক্ত করার পথ হল রাইডার। তার জন্য গ্রাহককে অতিরিক্ত কিছু টাকা দিতে হয়। বিশেষজ্ঞরা এই রাইডারের উপরে বিশেষ জোর দিয়ে থাকেন। লং টার্ম টু-হুইলার ইনসিওরেন্সের (Two-wheeler insurance) তুলনায় শর্ট টার্ম পলিসিতে বেশি রাইডার যুক্ত করার সুবিধা পাওয়া যায় এবং পরিবর্তিত প্রয়োজন অনুসারে বছর বছর তা পরিবর্তনও করা যেতে পারে। আরও পড়ুন:  এয়ারটেল, ভোডাফোন আইডিয়ায় রিচার্জ এবার থেকে আরও ব্যয়বহুল

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla