পাহাড়ে নতুন সঙ্গীর সন্ধানে বিমল-হারা বিজেপি, পৃথক রাজ্যের আশ্বাসে খুশি জিএনএলএফ

চলতি সপ্তাহেই দিল্লিতে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের সঙ্গে বৈঠকে বসেছিল জিএনএলএফ-সহ (GNLF) পাঁচটি আঞ্চলিক দল। তাঁদের অনেকেই ইতিমধ্যে জানিয়ে দিয়েছে, আলোচনা ফলপ্রসূ হয়েছে।

পাহাড়ে নতুন সঙ্গীর সন্ধানে বিমল-হারা বিজেপি, পৃথক রাজ্যের আশ্বাসে খুশি জিএনএলএফ
পাহাড়ে নতুন সঙ্গীর সন্ধানে বিমল-হারা বিজেপি, পৃথক রাজ্যের আশ্বাসে খুশি জিএনএলএফ

শিলিগুড়ি: গোর্খাল্যান্ড (Gorkhaland) নিয়ে ‘বিশ্বাসঘাতকতা’ করেছে বিজেপি (BJP)। এই অভিযোগ তুলে সম্প্রতি বিজেপির সঙ্গ ছেড়ে তৃণমূলের পাশে এসেছেন বিমল গুরুং (Bimal Gurung)। ফলে বিজেপির ধরাবাঁধা ভোটব্যাঙ্কে কিছুটা সংকট দেখা দিয়েছে। এই পরিস্থিতিতে আগামী বিধানসভা নির্বাচনে পাহাড়ের তিনটি বিধানসভা আসনে নিজেদের আধিপত্য বজায় রাখতে স্থানীয় ৫টি আঞ্চলিক দলকে আগলে রাখার কাজ শুরু করেছে বিজেপি। সূত্রের খবর, প্রাথমিকভাবে সেই কাজে তাঁরা অনেকটাই সফল হয়েছে।

চলতি সপ্তাহেই দিল্লিতে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের সঙ্গে বৈঠকে বসেছিল জিএনএলএফ-সহ (GNLF) পাঁচটি আঞ্চলিক দল। তাঁদের অনেকেই ইতিমধ্যে জানিয়ে দিয়েছে, আলোচনা ফলপ্রসূ হয়েছে। তাঁরা বিজেপির সঙ্গেই রয়েছেন।

এই নিয়ে বুধবার বিকালে দিল্লি থেকে ফিরে পাহাড়ের দ্বিতীয় বৃহত্তম দল জিএনএলএফ-র সভাপতি সুভাষ ঘিসিং পুত্র মন ঘিসিং মুখ খুলেছেন। তিনি জানিয়েছেন, আলোচনায় সন্তুষ্ট তাঁরাও। হাবেভাবে বুঝিয়ে দিয়েছেন, আগামী নির্বাচনে বিজেপির সঙ্গেই থাকবেন তাঁরা।

আরও পড়ুন: তৃণমূলের সভায় ভিড় কি আদৌ কাঁথির ভূমিপুত্রদের? অখিল গিরি নিজেই উস্কে দিলেন জল্পনা

এদিন বাগডোগরা বিমানবন্দরে মন ঘিসিং বলেন, সৌহার্দ্যপূর্ণ আলোচনা হয়েছে। আগামী দিনেও আলোচনা এভাবেই এগোবে বলে তিনি আশাবাদী। তাঁর আরও দাবি, পৃথক রাজ্যের দাবি পূরণ করবে কেন্দ্রীয় সরকার। পাহাড়ের সমস্যার স্থায়ী সমাধান হবেই।

আরও পড়ুন: বিজেপি কর্মীদের ওপর বেপরোয়া ‘লাঠিচার্জ’, রণক্ষেত্র খড়দা থানা চত্বর, নামল র‌্যাফ