Soumen Mahapatra: করোনা নিয়ন্ত্রণে না আসা পর্যন্ত দলের কাছে রাজনৈতিক কর্মসূচি বন্ধের আবেদন মন্ত্রীর

Tamluk: কার্যত অভিষেকের পথে হেঁটে দলের নেতাকর্মীর কাছে রাজ্যের মন্ত্রীর আবেদন, তাঁর এলাকায় মিটিং মিছিল বন্ধ রাখা হোক।

Soumen Mahapatra: করোনা নিয়ন্ত্রণে না আসা পর্যন্ত দলের কাছে রাজনৈতিক কর্মসূচি বন্ধের আবেদন মন্ত্রীর
করোনা পরিস্থিতিতে মানবিক আবেদন মন্ত্রীর। নিজস্ব চিত্র।

পূর্ব মেদিনীপুর: রাজ্যের করোনা (Corona) পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁর ব্যক্তিগত অভিমতে জানিয়েচিলেন ২ মাস পুরভোট পিছিয়ে দেওয়া উচিৎ। বড় কোনও জমায়েতেরও বিপক্ষে তিনি বলে জানিয়েছিলেন। এবার কার্যত অভিষেকের পথে হেঁটে দলের নেতাকর্মীর কাছে রাজ্যের মন্ত্রীর আবেদন, তাঁর এলাকায় মিটিং মিছিল বন্ধ রাখা হোক। করোনা পরিস্থিতির কঠিন বাস্তবতা কথা মাথায় রেখে এই আবেদন জানালেন সৌমেন মহাপাত্র (Soumen Mahapatra)।

রাজ্যে বেলাগাম করোনা গ্রাফ। পূর্ব মেদিনীপুর জেলার অবস্থাও তথৈবচ। মঙ্গলবারই করোনা পরিস্থিতির কথা রেখে বিভিন্ন অঞ্চলে আংশিক লকডাউন ঘোষণা করেছে জেলা প্রশাসন। করোনা চিন্তায় ভাঁজ পড়েছে সরকার ও প্রশাসনিক কর্তা দের কপালে। তাই কিছুটা হলেও মানবিক হচ্ছেন নেতা ও মন্ত্রীরা। তেমনি রাজ্যের সেচমন্ত্রীর আবেদন করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে না আসা পর্যন্ত তমলুকে তৃণমূলের নেতা-কর্মীদের সমস্ত রাজনৈতিক কর্মসূচি বন্ধ রাখা হোক। এদিন এক ফেসবুক পোস্টে এমনই আবেদন জানিয়েছেন স্থানীয় বিধায়ক তথা রাজ্যের সেচমন্ত্রী সৌমেন মহাপাত্র।

এলাকার করোনা পরিস্থিতি বিবেচনা করে মঙ্গলবার একটি ফেসবুকে একটি পোস্ট করেছেন মন্ত্রী। সেই গ্রাফিক্স পোস্টে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছবি দিয়ে লিখা রয়েছে, ‘তমলুক বিধানসভার সমস্ত তৃণমূল কংগ্রেস সৈনিকদের অনুরোধ করা যাচ্ছে, করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে না আসা পর্যন্ত কোনও জমায়েত, মিটিং-মিছিল, আচার-অনুষ্ঠান বন্ধ রাখলে বিধায়ক হিসাবে কৃতজ্ঞ থাকিব।’ মন্ত্রীর প্রস্তাবকে সমর্থন জানিয়ে তা বাস্তবায়িত করার আবেদন জানিয়েছেন অনেকেই।

Minister Soumen Mahapatra appeals to his party Workers to do not arranging meeting and campaign in Corona Situation

সেই পোস্ট।

উল্লেখ্য, এদিনই ভগবানপুর ১ নম্বর ব্লকের ভগবানপুর গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় পর্যায়ক্রমে বাজার বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। সোম, মঙ্গল ও বুধবার সপ্তাহে তিনদিন দোকান-বাজার খোলা রাখা হবে বলে প্রশাসন সূত্রে খবর।

বালিসাই বাজার খোলা থাকবে সপ্তাহে ৬ দিন। বাজার বন্ধ থাকবে প্রতি সোমবার। মঙ্গলবার এ ব্যাপারে নির্দেশিকা জারি করেছে রামনগর ২ নম্বর ব্লক প্রশাসন। কাঁথি মহকুমা শাসকের নির্দেশনামায় দেখা গিয়েছে আগামিকাল সকাল ৭টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত বাজার- হাট খোলা থাকবে। কাঁথি বড় সুপার মার্কেটকে স্থানান্তরিত করা হচ্ছে কাঁথি অরবিন্দ স্টেডিয়ামে এবং প্রতি শনিবার সম্পূর্ণ রূপে বন্ধ থাকবে কাঁথি বাজার।

অন্যদিকে গত সাতদিন যে সমস্ত জেলায় করোনা সংক্রমণ বেড়েছে, সেখানে আরও কড়াকড়ির নির্দেশ দেওয়া হয়েছে রাজ্যের তরফে। মুখ্যসচিব হরিকৃষ্ণ দ্বিবেদীর নির্দেশ, করোনা কেস যেখানে বেশি, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে সেখানে অতিরিক্ত নজরদারি করতে হবে প্রশাসনকে।

আরও পড়ুন: Sujan Chakraborty: গঙ্গাসাগর যতই সুপারস্প্রেডার হোক, মাননীয়ার ভাবমূর্তি তৈরিতে মেলা হয়ত জরুরী! 

আরও পড়ুন: Belur: ভার্চুয়াল মাধ্যমেই বেলুড়ে জাতীয় যুব দিবস পালন, থাকছে আজাদি কা অমৃত মহোৎসবের নানা অনুষ্ঠান, সেজে উঠেছে মঠ 

Related News

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla