Hooghly Flood Situation: দুর্যোগের ভ্রূকুটি, দোসর ভাঙা বাঁধ! প্রহর গুনছে খানাকুল

Hooghly Flood Situation: হুগলির আরামবাগ,খানাকুল ,পুড়শুড়া ও গোঘাটের মানুষ চিন্তিত। এমনিতেই খানাকুল দু'নম্বর ব্লকের ১১ টি গ্রাম পঞ্চায়েতের শতাধিক গ্রাম এখনও জলের তলায়।

Hooghly Flood Situation: দুর্যোগের ভ্রূকুটি, দোসর ভাঙা বাঁধ! প্রহর গুনছে খানাকুল
খানাকুলে বন্যা পরিস্থিতি (ফাইল ছবি)

হুগলি: আবারও বন্যার ভ্রুকুটি হুগলির (Hooghly) খানাকুলে (Khanakul)। ধান্যঘোরী-বন্দর এলাকায় রূপনারায়ণের ভাঙা বাঁধ দিয়ে জল ঢুকছে গ্রামে। সঙ্গে রয়েছে আবারও ভারী বৃষ্টির পূবার্ভাস। নতুন করে প্লাবন আতঙ্কে ঘুম উড়েছে খানাকুলবাসীর। সর্তকতা জারি করেছে প্রশাসন।

শিলাবতী ও দ্বরোকেশ্বরে ক্রমশই জল বাড়ছে। ফুলে ফুলে ফেঁপে উঠছে রূপনারায়ণও। পশ্চিমের জেলাগুলিতে ফের ভারী বৃষ্টি হলে দ্বারকেশ্বর ও শিলাবতীতে জলের চাপ বাড়বে। এমনিতেই পরপর দুটি বন্যায় রাজ্য সড়ক থেকে গ্রামীণ সড়ক ভেঙেচুরে একাকার। এখনও গ্রামের বেশ কিছু অংশ থেকে গতবারের বন্যার জল নামেনি। তার ওপর ফের দুর্যোগের পূবার্ভাসে ভয়ে কাঁটা খানাকুল।

হুগলির আরামবাগ,খানাকুল ,পুড়শুড়া ও গোঘাটের মানুষ চিন্তিত। এমনিতেই খানাকুল দু’নম্বর ব্লকের ১১ টি গ্রাম পঞ্চায়েতের শতাধিক গ্রাম এখনও জলের তলায়। বেশ কিছু এলাকায় দুর্গতরা ছাদে ত্রিপল টানিয়ে জীবন যাপন করছেন। রাত থেকে বৃষ্টিতে সেই সমস্ত বন্যাদুর্গতদের অবস্থা আরও করুণ হয়ে উঠেছে।

এদিকে রূপনারায়ণের জল খানাকুলের ধানঘ্যোরী গ্রাম পঞ্চায়েতের পাত্র পাড়া ও মাইতি পাড়া এলাকা দিয়ে গ্রামে ডুকছে এখনও। তবে নতুন করে খানাকুলে বন্যার জলস্তর বাড়ে নি। জল কমলেও পরিস্থিতির উন্নতি হয়নি ঘাটালে।

আবহাওয়াবিদরা বলছেন,  সোমবারের মধ্যে আরও একটি ঘূর্ণাবর্ত তৈরি হবে পূর্ব-মধ্য বঙ্গোপসাগর এলাকায়। এই ঘূর্ণাবর্ত নিম্নচাপ হয়ে পশ্চিমবঙ্গের উপকূলের দিকে এগিয়ে আসবে। সুন্দরবন দিয়ে এটি প্রবেশ করে ক্রমশ ঝাড়খণ্ডের দিকে চলে যাবে। এর প্রভাবে প্রবল দুর্যোগের আশঙ্কা থাকছে দক্ষিণবঙ্গে।

রবিবার পূর্ব মেদিনীপুর জেলায় ভারী বৃষ্টির হলুদ সর্তকতা জারি করা হয়েছে। সোমবার পূর্ব ও পশ্চিম মেদিনীপুর এবং দক্ষিণ ২৪ পরগনায় ভারী বৃষ্টির হলুদ সর্তকতা জারি করা হয়েছে। মঙ্গলবার জারি ভারী বৃষ্টির কমলা সর্তকতা। কলকাতা, পূর্ব ও পশ্চিম মেদিনীপুর, উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা, হাওড়া, হুগলি জেলায় ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টির সর্তকতা জারি করা হয়েছে।

বুধবার প্রবল বর্ষণের সম্ভাবনা। ভারী বৃষ্টির কমলা সতর্কতা রয়েছে এদিনও। কলকাতা, দুই মেদিনীপুর, উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা, হাওড়া, হুগলি, ঝাড়গ্রাম, বাঁকুড়া, পুরুলিয়া, পূর্ব ও পশ্চিম বর্ধমান জেলা গুলিতে ভারী বৃষ্টি হবে। কোথাও কোথাও বিক্ষিপ্তভাবে অতি ভারী বৃষ্টির সর্তকতা জারি করা হয়েছে।

রবিবার পূর্ব মেদিনীপুর জেলায় ভারী বৃষ্টির সঙ্গে ৬০ কিলোমিটার বেগে ঝোড়ো হাওয়া বইতে পারে। ঝড়ো হাওয়া ও বৃষ্টির সর্তকতা জারি করা হয়েছে দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলাতেও। মঙ্গল ও বুধবার কলকাতা, হাওড়া, হুগলি এবং পশ্চিম মেদিনীপুরে ৫০ কিলোমিটার বেগে ঝোড়ো হাওয়া বইতে পারে।
উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা এবং পূর্ব মেদিনীপুরে ৬৫ কিলোমিটার পর্যন্ত ঝড়ো হাওয়া বইতে পারে বলে আশঙ্কা আবহাওয়াবিদদের। আপাতত মৎস্যজীবীদের সমুদ্রে যাওয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।

আরও পড়ুন: Cyclone Gulab: উপকূলের দিকে এগোচ্ছে ‘গুলাব’, বুধবার পর্যন্ত কড়া সতর্কতায় লালবাজার

Read Full Article

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla