TMC: গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব অতীত? এক মঞ্চে আরাবুল-কাইজারকে দেখে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেললেন তৃণমূল নেতৃত্ব

TMC: তৃণমূল (TMC) জমানায় ভাঙড় মানেই আরাবুল, কাইজার, ওহিদুল, নান্নুর আলাদা আলাদা গোষ্ঠী এবং সেই সব গোষ্ঠীর সমর্থকদের মধ্যে বিবাদের খবর আকছার পাওয়া যায়।

TMC: গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব অতীত? এক মঞ্চে আরাবুল-কাইজারকে দেখে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেললেন তৃণমূল নেতৃত্ব
আরাবুল ও কাইজার। নিজস্ব চিত্র।

ভাঙড়: তৃণমূল (TMC) জমানায় ভাঙড় মানেই আরাবুল, কাইজার, ওহিদুল, নান্নুর আলাদা আলাদা গোষ্ঠী এবং সেই সব গোষ্ঠীর সমর্থকদের মধ্যে বিবাদের খবর আকছার পাওয়া যায়। কয়েক মাস আগে কঠিন অসুখে ভুগে নান্নু হোসেন ও ওহিদুল ইসলাম মারা গিয়েছেন। তারপর থেকে জেলা সভাপতির নির্দেশে আইএসএফের বিরুদ্ধে এক হয়ে লড়াই করার বার্তা দেন আরাবুল ও কাইজার। এদিন দুই নেতাকে দেখা গেল এক মঞ্চে। কোলাকুলি করলেন তাঁরা।

গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব দূরে সরিয়ে একই মঞ্চে পাশাপাশি দেখা গেল একই দলের দুই বিবাদমান গোষ্ঠীর নেতা আরাবুল ইসলাম ও কাইজার আহমেদকে। যা দেখে খুশি ভাঙড়ের সাধারণ তৃণমূল কর্মী সমর্থকরা। স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেললেন তৃণমূলের জেলা সভাপতি শুভাশিস চক্রবর্তী।

মঙ্গলবার ভাঙড়ের শোনপুর বাজারে একটি কর্মী সভার আয়োজন করেছিলেন আরাবুল ইসলাম। সেই সভায় ভাঙড়ের দশটি অঞ্চল থেকে প্রধান, উপ প্রধান এবং অঞ্চল সভাপতিরা যোগদান করেন। আরাবুলের ডাকে জেলা সভাপতি ছাড়াও জেলার সভানেত্রী মোনমোহিনী বিশ্বাস, শ্রমিক সংগঠনের সভাপতি শক্তিপদ মণ্ডল, জেলার যুব সভাপতি অভীক মজুমদার প্রমুখ বক্তৃতা রাখেন। সকলেই ভাঙড়ের যোগ্য নেতা হিসাবে আরাবুলের কথা বলেন।

এদিনের আরাবুলের সভায় যোগ দিয়ে কাইজারকে বলতে শোনা গেল, ‘আরাবুলদা খুব ভাল মিটিং করছে, প্রচুর লোকের সমাগম হয়েছে। মাঠ আরও বড় হলে ভাল হত।’ পাল্টা আরাবুল বলেন, ‘কাইজার অত্যন্ত দক্ষ সংগঠক, সারা বছর মানুষের পাশে থাকে।’ তাঁদের পরস্পরের এই পিঠ চাপাড়ানি দেখে অবাক ভাঙড়ের নিচু স্তরের তৃণমূল কর্মীরাই।

আরও পড়ুন: Hospital: রেফার গেরোয় মেলেনি চিকিৎসা, ক্যান্সার রোগীকে নিয়ে ৮ দিন ধরে খোলা আকাশের নিচে পরিবার!

কাইজার ছাড়াও এদিন আরাবুল বিরোধী বলে পরিচিত হবিবুর রহমান বিশ্বাস, বাহারুল ইসলামরা উপস্থিত ছিলেন। ভাঙড়ের তৃণমূল নেতা মোদাসের হোসেন, জুলফিক্কর মোল্লা, ইব্রাহিম মোল্লার নেতৃত্বে এদিন কয়েক হাজার কর্মী ওই সভায় যোগ দেন। কাঁঠালিয়া থেকে মোদাসের যে বিশাল মিছিল বার করেন তাতে ৯১ রোড অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে, আটকে যায় শুভাশিসের গাড়ি। শুভাশিস আবার তাতে রাগ না করে পাল্টা সার্টিফিকেট দেন মোদাসেরকে। বলেন, ‘ও ভাল ছেলে, ও কিছু বক্তব্য রাখলে সেটা ভাইরাল হয়ে যায়। অথচ ত্রিপুরায় বিজেপির গুন্ডাগিরি গুলো ভাইরাহ হচ্ছে না।’ হঠাৎ করে তৃণমূলের বিবাদমান গোষ্ঠীর এমন একতা দেখে অবাক দলের কর্মীরাই।

আরও পড়ুন: Third Gender: পৌরুষ দেখাতে অন্যকে হিজড়ের সঙ্গে তুলনা, সংবিধানকেই অপমান করছেন না তো দিলীপ-কুণালরা? প্রশ্ন বৃহন্নলাদের 

আরও পড়ুন: Dilip Ghosh: ‘তৃণমূল এখন বৃদ্ধাবাস, রিজেক্টেড নেতাদের পুনর্বাসনের জায়গা’, কটাক্ষ দিলীপের’ 

আরও পড়ুন: Extra Marital: প্রেমিকের বাইকে চড়ে টাটা করলেন টুম্পা, অপমানে শ্বশুরবাড়িতে আত্মঘাতী স্বামী 

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla